২০১৪ সালের পর রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড

12

পূর্বদেশ ডেস্ক

চৈত্রের খরতাপে পুড়ছে রাজশাহী। বেলা গড়াতেই প্রখর তাপ নিয়ে আলো ছড়াচ্ছে সূর্য। কড়া রোদ আর ভ্যাপসা গরমে বিপর্যস্ত জনজীবন। তীব্র দাবদাহে প্রকৃতিও নিস্তেজ। হালকা বাতাস থাকলেও সেটিও গরম ছড়াচ্ছে। প্রাণিক‚লও ছড়াচ্ছে তপ্ত নিশ্বাস।
রাজশাহীতে গতকাল শুক্রবার মৌসুমের সর্বোচ্চ ৪২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। ২০১৪ সালের পর রাজশাহীতে এত তাপমাত্রা হয়নি। পবিত্র রমজানে এমন গরমে হাঁপিয়ে উঠেছে মানুষসহ পশু-পাখিরাও। বিশেষ করে রোজাদাররা বেশি কষ্টের মধ্যে পড়েছেন। ঘরে-বাইরে কোথাও স্বস্তি নেই। সবখানেই তপ্ত আবহাওয়া। একটু স্বস্তির খোঁজে খেটে খাওয়া দিনমজুর ও অটোরিকশা চালকরা গাছের নিচে আশ্রয় নিচ্ছেন। তবে সেখানেও তেমন একটা স্বস্তি নেই।
গতকাল শুক্রবার রাজশাহীতে মৌসুমের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মার্চের মধ্যভাগ থেকেই রাজশাহীতে দাবদাহ শুরু হয়েছে। সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ তাপমাত্রার ব্যবধান কমে এসেছে। দেখা মিলছে বৃষ্টির। চারদিকে বৃষ্টির জন্য হাহাকার পড়ে গেছে। বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। অসহনীয় রোদ, আর গরমে স্থবিরতা নেমে এসেছে জনজীবনে। তেতেছে ঘরের আসবাবপত্রও।
নগরীর হেতমখাঁ এলাকার অটোচালক মতিউর রহমান বলেন, ‘তীব্র দাবদাহের কারণে বিকাল ৪ টার পর বের হয়েছি। এখন রোদের তাপ কম মনে হচ্ছে। সেই সঙ্গে মানুষও ঘর থেকে বের হচ্ছে। তবে ভ্যাপসা গরম আছে’। খবর বাংলা ট্রিবিউনের