হাফিজ-ইমামের ব্যাটে পাকিস্তানের দুর্দান্ত জয়

32

ফাফ ডু প্লেসিসের কথাটাই তাহলে সত্য হয়েছে! দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক বলেছিলেন, ওয়ানডেতে তাদের চেয়ে শক্তিশালী দল পাকিস্তান। স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্টে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর এবার পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৫ উইকেটের জয় তুলে নিলো সফরকারী পাকিস্তান। পোর্ট এলিজাবেথের সেন্ট জর্জে’স পার্কে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ২৬৬ রান তোলে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। জবাবে ৫ বল হাতে রেখে ৫ উইকেট হারিয়েই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় পাকিস্তান (২৬৭/৫)।
জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে প্রথম উইকেট জুটিতে ৪৫ রান করেন দুই ওপেনার ইমাম উল হক ও ফখর জামান । তবে এরপর ব্যক্তিগত ২৫ রানে ফখর আউট হলে ব্যাটিংয়ে আসেন বাবর আজম। দলীয় ১৩৯ রানে ব্যক্তিগত ৪৯ রানে আউট হয়ে ফেরেন বাবর। এরপর ইমাম উল হকের সঙ্গে ব্যাটিংয়ে এসে ঝড়ো ইনিংস খেলতে থাকেন মোহাম্মদ হাফিজ।
কিন্তু দলীয় ১৮৫ রানে ব্যক্তিগত ৮৬ রানে ফেরেন ইমাম। এরপর শোয়েব মালিক (১২) ও অধিনায়ক সরফরাজ (১) রানে ফিরলেও , শাদাব খানকে সঙ্গে করে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন হাফিজ। ৬৩ বলে ৮ চার ও ২ ছক্কায় ৭১ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন হাফিজ, তার সঙ্গে ১৮ রানে অপরাজিত থাকেন শাদাব খান। দক্ষিণ আফ্রিকার অলিভিয়ের সর্বোচ্চ ২ উইকেট নেন। এছাড়াও ফেলুকায়ো, ইমরান তাহির ও হ্যানড্রিকস ১টি করে উইকেট নেন।
এর আগে শুরুতে ব্যাট কতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে হাশিম আমলা সর্বোচ্চ ১০৮ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন। এছাড়াও অভিষেক ম্যাচে ৯৩ রানের ইনিংস খেলেন ভ্যান ডের ডুসেন। তবে অভিষেক ম্যাচে ৭ রানের আক্ষেপ থেকে গেল ২৯ বছর বয়সি এই ডানহাতি ব্যাটসম্যানের। এছাড়াও ওপেনার রিজা হ্যানড্রিকস ৪৫ রান করেন। আর ডেভিড মিলার অপরাজিত ছিলেন ১৬ রানে। পাকিস্তানের হাসান আলী ও শাদাব খান একটি করে উইকেট নেন।ম্যাচসেরার পুরস্কার আসে পাকিস্তানের মোহাম্মদ হাফিজের হাতে।