‘হযরত মুহাম্মদ প্রেরিত হন নিখিল বিশ্বের নবী হিসেবে’

14

২৬ সেপ্টেম্বর বাদ মাগরিব বায়তুশ শরফ আনজুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশের উদ্যোগে পবিত্র মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে পাঁচদিন ব্যাপী কর্মসূচির ৩য় দিবসে শানে মোস্তফা (সা.) মাহফিল চট্টগ্রাম মহানগরীর ধনিয়ালাপাড়া কেন্দ্রীয় বায়তুশ শরফ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে রাহবারে বায়তুশ শরফ আল্লামা শায়খ মুহাম্মদ আবদুল হাই নদভী বলেন, সাইয়্যিদুল মুরসালিন হযরত মুহাম্মদ (সা.) প্রেরিত হয়েছিলেন নিখিল বিশ্বের নবী হিসেবে।
তিনি ছিলেন বিশ্ববাসীর জন্য রহমত স্বরূপ। শানে মোস্তফা মাহফিলে সম্মানিত অতিথি চট্টগ্রাম মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজের চেয়ারম্যান সৈয়দ মোহাম্মদ মোরশেদ হোসেন বলেন, প্রচলিত পীর মুরিদীর আবহে পরিবেষ্ট না থেকে বায়তুশ শরফের পীর মুর্শিদরা ইহ ও পারলৌকিক কল্যাণে নিবেদিত থেকে যেভাবে দেশে ইসলামের বাণী ছড়িয়ে দিয়েছেন তা অনুসরণীয় ও অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। মহানবী (সাঃ) যেভাবে সেবা ও দয়ার মাধ্যমে ইসলামের সুমহান বাণী বিশ্বময় ছড়িয়ে দিয়েছিলেন বায়তুশ শরফ তারই বাস্তব উদাহরণ। তিনি বায়তুশ শরফকে আধ্যাত্মিকতা, সেবা, দয়া ও জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চার সমন্বিত আধার হিসেবে আখ্যায়িত করেন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বায়তুশ শরফ আনজুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশ এর সেক্রেটারি জেনারেল হাফেজ মোহাম্মদ আমান উল্লাহ, মজলিসুল ওলামার মহাসচিব ও অনুষ্ঠান বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক মাওলানা মামুনুর রশীদ নুরীসহ উপস্থিত ছিলেন বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল (অনার্স-মাস্টার্স) মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আবু সালেহ মুহাম্মদ ছলিমুল্লাহ, মাসিক দ্বীন দুনিয়ার সম্পাদক মুহাম্মদ জাফর উল্লাহসহ আনজুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশ কর্মকর্তা ও ওলামা-মাশায়েখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মাওলানা কাজী শিহাব উদ্দিন। ২৭ সেপ্টেম্বর বুধবার বাদ মাগরিব অনুষ্ঠিত হবে গুণীজন সংবর্ধনা। বিজ্ঞপ্তি