‘হঠাৎ কন্যা’র মাতৃত্বের দাবিতে ক্ষুব্ধ অনুরাধা পাড়োয়াল

71

কেরালার তিরুবনন্তপুরমের বাসিন্দা এক নারী দাবি করেছেন, প্রখ্যাত সংগীতশিল্পী অনুরাধা পাড়োয়াল তার জন্মদাত্রী মা। এই দাবিতে তিনি ৫০ কোটি রুপির মামলাও ঠুকে দিয়েছেন। এ নিয়ে প্রচণ্ড বিব্রত ও ক্ষুব্ধ অনুরাধা পাড়োয়াল।
করমালা মডেক্স নামের ৪৫ বছর বয়সী ওই নারী তিরুবনন্তপুরমের জেলা পারিবারিক আদালতে এক অভিযোগ দায়ের করেছেন। তার দাবি, অনুরাধা পাড়োয়াল তার মা। কিন্তু তাকে লালন-পালন করতে চাননি অনুরাধা। বরং তার পালিত বাবা-মা পন্নাচান ও অ্যাগনেসের কাছে তাকে চিরদিনের জন্য দিয়ে দেন।
ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের কাছে এক সাক্ষাৎকারে করমালা বলেন, ‘প্রায় চার-পাঁচ বছর আগে আমার পালক পিতা তার মৃত্যুশয্যায় স্বীকার করে গেছেন যে, আমার জন্মদাত্রী মা প্রকৃতপক্ষে অনুরাধা পাড়োয়াল। আমাকে বলা হয়, আমাকে যখন পালক বাবা-মায়ের কাছে হস্তান্তর করা হয় তখন আমার বয়স ছিল মাত্র চারদিন। সেসময়ে পন্নাচান মহারাষ্ট্রে সেনাবাহিনীতে কর্মরত ছিলেন। তিনি ছিলেন অনুরাধার বন্ধু। পরে তার কেরালায় বদলি হয়।’
করমালা আরও জানান, ঠিক শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগের আগেই পন্নাচান এই কথা বলে গেছেন।
‘এখন, আমরা এটা আইনি প্রক্রিয়ায় দাবি করার জন্য এগোচ্ছি। তিনি আমার মা এবং আমি তাকে ফেরত চাই,’ যোগ করেন তিনি।
করমালার আইনজীবী অনিল প্রসাদ জানিয়েছেন, তার জন্মদাতা মা-বাবার কাছ থেকে ৫০ কোটি রুপির ক্ষতিপূরণ দাবি করা হয়েছে। কথিত জন্মদাতা পিতা অরুণ পাড়োয়ালের সমগ্র সম্পত্তির ওপর বিক্রির নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার জন্যও আদালতে আবেদন করেছেন করমালা।
তিনি আরও বলেন, ‘যদি অনুরাধা পাড়োয়াল করমালা মোডেক্সকে অস্বীকার করেন, তাহলে আমরা তাদের ডিএনএ পরীক্ষার দাবি জানাব।’
এসব নিয়ে প্রথম নীরব থাকলেও পরে তোপ দেগেছেন ৬৭ বছর বয়সী সংগীতশিল্পী অনুরাধা পাড়োয়াল। এক সংবাদসংস্থার কাছে তিনি ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, ‘এক তুচ্ছ ব্যক্তির মূর্খ বক্তব্যকে পরিষ্কার করা আমার কাজ না। এটি আমার জন্য অমর্যাদাকর।’