সোশ্যাল মিডিয়ায় যতকথা

7

স্বপ্নের পদ্মা সেতু

আয়েশা পারভীন চৌধুরী

আজকে আমার মন ভালো নেই
মানতে আমি আর রাজি না
আজকে যে আমার মনটা ভালো
খুব বেশি ভালো; সত্যিই ভালো
মানবে কীনা; তা তো জানি না।

আজ জেগেছে বাংলা আমার
বইছে শুধু আজ আনন্দ ধারা
হাসছে বাংলা; গাইছে বাংলা
অপার খুশিতে নাচ্ছে বাংলা
জিতেছে বাংলা; বুঝেছে তা বিশ্ব
আজ শুরু হল দিন বদলের পালা।

আজকে আমার এসেছে সময় বলার
চাওয়া পাওয়ার হিসাব নিকেশ করার
এত দিনের প্রবল ইচ্ছা গুলো সবার
ইট পাথর শ্রমে মেধায় বুনেছে স্বপ্ন
দাড়িয়ে আছে বিশালতা প্রমত্ত পদ্মার
সক্ষমতায় প্রশংসিত আমাদের বাংলা।

আখেরী চাহার শোম্বা

মিতা পোদ্দার

বাংলাদেশের আকাশে হিজরি ১৪৪৪ সনের পবিত্র সফর মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে সোমবার (২৯আগস্ট) থেকে পবিত্র সফর মাস শুরু হওয়ায় আগামী ২১সেপ্টেম্বর (২৪সফর ১৪৪৪হিজরি) পবিত্র আখেরী চাহার শোম্বা পালিত হবে। আখেরী চাহার শোম্বা হলো ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের পালিত অত্যন্ত মর্যাদাপূর্ণ একটি দিবস। আখেরী চাহার শোম্বার আরবী ও ফারসী শব্দ হলো যুগল; যার অর্থ শেষ এবং ফার্সি অংশ চাহার শোম্বা যার অর্থ ‘বুধবার’। মূলত সফর মাসের শেষ বুধবারে মোহাম্মদ (সা.) এর সাময়িক সুস্থতাকে স্মরণ করে মুসলমানরা যে ইবাদত করেন তাই আখেরী চাহার নামে খ্যাত।
পৃথিবীর সকল মুসলিম যথাযোগ্য মর্যাদায় ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যে এই দিনটিকে স্মরণ করেন। ইসলামের সর্বশেষ এর্ব সর্বশ্রেষ্ঠ মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) ইন্তেকালের আগে এইদিনে কিছুটা সুস্থতা বোধ করেছিলেন।
রাসুলুল্লাহ (সা.) জীবনে শেষবারের মতো রোগমুক্তি লাভ করেন বলেই দিনটিকে মুসলমানরা প্রতিবছর শুকরিয়া দিবস হিসেবে উদ্যাপন করেন। দিনটিকে তারা নফল ইবাদত বন্দেগীর মাধ্যমে উপভোগ করেন। তাই উম্মতে মুহাম্মদির আধ্যাত্মিক জীবনে আখেরী চাহার শোম্বার গুরুত্ব ও মহিমা অপরিসীম।