সীমিতভাবে গণপরিবহন চালু করে পরিবহন শ্রমিকদের দুর্ভোগ লাঘব জরুরি

33

করোনা ভাইরাসজনিত কারণে দেশে যে অঘোষিত লকডাউন অবস্থা চলছে তা বিভিন্ন ক্ষেত্রে শিথিল হতে দেখা যাচ্ছে। শর্ত সাপেক্ষে দোকান পার্ট- মার্কেট ইত্যাদি খোলা রাখার ব্যাপারে সরকারি সম্মতি পাওয়া গেছে। পোশাকশিল্প তথা গার্মেন্টস ফ্যাক্টরী কলকারখানা চালু করা হয়েছে। ঈদের পরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলে দেয়ার ব্যাপারেও ঘোষণা আসতে পারে। এ দিকে দেশে প্রাইভেট গাড়ি চলাচল বন্ধ নেই। তা ছাড়া রিক্সা-অটোরিক্সা, সিএনজি অটোরিক্সা, পণ্যবাহী বাস-ট্রাক, মিনি ট্রাক ইত্যাদি চলছে। কিন্তু সাধারণ স্বল্প আয়ের মানুষের যানবাহন তথা গণপরিবহন এখনো বন্ধ রয়েছে। যার কারণে প্রয়োজনে যাদের কাছে কিংবা দূরের পথে যাত্রা করতে হচ্ছে তাদের দুর্ভোগের শেষ নেই। যারা দ্বিগুণ তিনগুণ, অবস্থা ভেদে চার-পাঁচগুণ অতিরিক্ত ভাড়া গুণতে সক্ষম নয়, তাদের যাত্রা পথে দুর্ভোগের সীমা নেই। অপর পক্ষে পরিবহন শ্রমিকরা অমানবিক দুঃখকষ্টে জীবন ধারণ করছে। হাজার হাজার গণপরিবহন শ্রমিক ঘরবসা। তারা তেমন কোন সরকারি বেসরকারী ত্রাণও পাচ্ছে না। সরকার এবং বিভিন্ন মালিক শ্রমিক নেতারা পরিবহন শ্রমিকদের ত্রাণসামগ্রী দিচ্ছে বলে প্রচার থাকলেও কার্যত অধিকাংশ পরিবহন শ্রমিক মানবেতর জীবনযাপন করতে বাধ্য হচ্ছে।
এমতাবস্থায় সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ এবং পরিবহন শ্রমিকদের কষ্টের কথা বিবেচনা করে শর্ত সাপেক্ষে সীমিতভাবে হলেও গণপরিবহন চালু করলে সংশ্লিষ্টদের কষ্ট কিছুটা লাঘব হবে এমন ধারণা সংশ্লিষ্ট সকলের। স্বাস্থ্যবিধি মেনে, দূরত্ব বজায় রেখে যতটুকু সম্ভব গণপরিবহন চালু করা সময়ের দাবি।
কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাব দিন দিন বাড়ছে। তবু আমাদের ভেবে দেখতে হবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উক্তি। কয়দিন পূর্বে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যথার্থই বলেছেনÑ ‘মৃত্যুর ভয়ে জীবন তো অচল থাকতে পারে না।’ যা আমরা বিভিন্নপত্র পত্রিকায় খবর থেকে জানতে পেরেছি। মৃত্যুর ভয় আমাদের প্রতিটি মুহ‚র্তে আছে। তাই বলে ঘরে বসে থাকলে অসংখ্য জীবন অচল হয়ে পড়ে। জীবন মূলত বহতা নদীর মতো। সে কারণে গণপরিবহনের যাত্রী এবং শ্রমিকরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে গণপরিবহন চালুর বিষয়ে। বিশেষজ্ঞদের ধারণা সীমিতভাবে গণপরিবহন চালু করার কারণে সারাদেশের মানুষের যে ক্ষতি হবে সেই ক্ষতি কল-কারখানা, গার্মেন্টস শিল্প, দোকানপার্ট, মার্কেট চালুতেও রয়েছে। সুতরাং যা হবার হবে। শর্ত সাপেক্ষে এবং সীমিতভাবে গণপরিবহন চালু করার পক্ষে মত দিচ্ছে গণপরিবহন সংশ্লিষ্টরা।