সিরিয়াকে আরব লিগে ফেরাতে সমর্থনের ইঙ্গিত মরক্কোর

64

সিরিয়া প্রশ্নে অবস্থান নরম করার ইঙ্গিত দিয়েছে মরক্কো। ২২ সদস্যের আরব লিগে দামেস্ককে ফেরাতে কয়েকটি আরব দেশের উদ্যোগকে সমর্থনের ইঙ্গিত দিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী নাসের বৈরুতা। বুধবার কাতারভিত্তিক আল জাজিরা টেলিভিশন চ্যানেলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এই ইঙ্গিত দেন। তবে এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও কিছু জানায়নি মরক্কোর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এর আগে গত শুক্রবার দামেস্ককে আরব লিগের সদস্যপদ ফিরিয়ে দেওয়ার আহবান জানান লেবাননের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেবরান বসিল।
সিরিয়ায় সরকার বিরোধী বিক্ষোভের জের ধরে অন্য আরব দেশগুলোর মতো ২০১১ সালে সিরিয়া থেকে নিজেদের রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করে নেয় মরক্কো। গৃহযুদ্ধে সরকারবিরোধীদের ওপর সহিংসতার অভিযোগে ওই বছরেই বাতিল করা হয় আরব লিগে সিরিয়ার সদস্যপদ। সেই সদস্য পদ ফিরে পেতে হলে আরব দেশগুলোকে অবশ্যই একমত হতে হবে।
সাত বছরের গৃহযুদ্ধের পর সিরিয়ার বেশিরভাগ অঞ্চল প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসায় সেখানে অ-আরব ইরান ও তুরস্কের প্রভাব বৃদ্ধির আশঙ্কা করছে আরব দেশগুলো। সেকারণে এক সময়ে আসাদ বিরোধীদের সহায়তা দেওয়া কয়েকটি আরব দেশসহ অন্যরাও দামেস্কের সঙ্গে সম্পর্ক পুনরুদ্ধারের চেষ্টায় আছে বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স। ২০ জানুয়ারি লেবাননের বৈরুতে অনুষ্ঠিত হয়েছে আরব লিগের সম্মেলন।

গত ৩ জানুয়ারি লেবাননের আল আকবর সংবাদপত্র জানায় ওই সম্মেলনে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদকে আমন্ত্রণ জানাতে বেশ কয়েকটি আরব দেশের সঙ্গে টেলিফোনে আলোচনা করেছেন লেবাননের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেবরান বসিল। শেষ পর্যন্ত সম্মেলনে আসাদ যোগ না দিলেও ১৮ জানুয়ারি আরব লিগে সিরিয়াকে ফেরানোর আহবান জানান জেবরান বসিল। এরপর নিজেদের অবস্থান বদলানোর ইঙ্গিত দিলো মরক্কো। বুধবার দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আল জাজিরাকে বলেন, ‘আরব লিগে সিরিয়ার ফেরার প্রশ্নে আরব দেশগুলো সমন্বয় করবে’।
গত ডিসেম্বরে দামেস্কে পুনরায় দূতাবাস চালু করে এক সময়ে আসাদ বিরোধীদের সহায়তা করা সংযুক্ত আরম আমিরাত। মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন মিত্র দেশটির এই উদ্যোগের পরই তাকে অনুসরণ করে বাহরাইন। মানামাতেও সিরিয়ার কূটনৈতিক মিশন চালুর ঘোষণাও দেওয়া হয়।
কুয়েত জানিয়েছে আরব লিগের সিদ্ধান্তের প্রতি সমর্থন থাকবে তাদের। সংস্থাটির অনুমোদন পেলে দামেস্কে দূতাবাস চালুর ঘোষণা দিয়েছে তারা। এর আগে গত ডিসেম্বরে সিরিয়ার গৃহযুদ্ধ শুরুর পর প্রথম আরব রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে দামেস্ক সফর করেন সুদানের প্রেসিডেন্ট ওমর আল বসির।