‘সাতকানিয়ায় বেকারত্ব দূরীকরণে শিল্প কারখানা তৈরি করা হবে’- সাংসদ এম.এ মোতালেব সিআইপি

20

পূর্বদেশ অনলাইন
সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনের সংসদ সদস্য ও সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম.এ মোতালেব সিআইপি বলেছেন, সাতকানিয়ার মানুষের কথা ঢাকাসহ সারাদেশের মানুষ প্রশংসা করেন। তাদের বেশিরভাগ মানুষ ব্যবসায়িক মনোভাব নিয়ে চলেন। সাতকানিয়া এলাকাটি অবকাঠামোগত দিক দিয়ে এগিয়ে বিধায় এ এলাকায় একটা শিল্প কারখানা গড়ে তুলতে চাই। যেখানে নারী ও বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান তৈরি হবে। কর্মসংস্থান হলে বেকার যুবকেরা মাদক বা খারাপ কাজ থেকে দুরে থাকবে। আমি এও বলতে চাই- কেউ যদি শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়তে চান, তাঁকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।’ গত রবিবার রাত সাড়ে নয়টায় নগরীর একটি অভিজাত কনভেনশন হলে ছদাহা সমিতি চট্টগ্রাম মহানগরের বার্ষিক মিলনমেলা ও মেজবান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।তিনি আরও বলেন, ‘আমি উপজেলা চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে সাতকানিয়া সদর ইউনিয়নকে যেভাবে দেখেছি সেভাবে ছদাহা ইউনিয়নকে উন্নয়ন করেছি। টানা ৩০ বছর মানুষের উপকার করেছি। এখন আপনাদের ভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছি। আগামী পাঁচ বছর কেন আপনাদের সেবা করতে পারবো না? আমি স্বচ্ছতার সাথে আমার কাজ পরিচালনা করতে চাই। দোষী যেই হোক না কেন, তাকে ছাড় দেয়া হবে না। দক্ষিণ চট্টগ্রামে একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় করতে চাই, তা নিয়ে সংসদে এবং শিক্ষা মন্ত্রীর সাথে কথা হয়েছে। তিনি আমাকে আশ্বস্ত করেছেন, সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় একটি বিশ্ববিদ্যালয় করা হবে।’ ছদাহা সমিতির সভাপতি আহমদ লাল মিয়ার সভাপতিত্ব যুগ্ম সম্পাদক মাহাবুবুল আলম ও জাহাঙ্গীর আলমের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অনুষ্ঠানের শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হাবিবউল্লাহ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপদেষ্টা এম এ ইসহাক, ছদাহা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. মোরশেদুর রহমান, এ.কে.এম সাইফুল ইসলাম চৌধুরী, আলহাজ্ব মো. ফরিদ, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইসলাম, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ শাহাদাত হোসাইন, মঞ্জুর আলম, মোসাদ হোসাইন চৌধুরী, আলী আহমদ চৌধুরী, তাজুল ইসলাম চৌধুরী, অধ্যাপক আমীর মো. নসরুল্লাহ। বক্তব্য রাখেন, সহ সভাপতি মুহাম্মদ মাহফুজুর রহমান, অধ্যাপক আইয়ুব নূরী, মুজিবুর রহমান, মোহাম্মদ মোরশেদ কায়সার আনোয়ার, মোহাম্মদ এহছান, লোকমান হাকিম, মো. দেলোয়ার হোসেন প্রমূখ। বক্তারা বলেন, চট্টগ্রাম শহরে বসবাসরত ছদাহাবাসীদের সংগঠন ছদাহা সমিতির বিগত সময়ের কাজগুলো আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করেছে। সবাই এক হয়ে সমাজ থেকে দারিদ্রতা দূরীকরণ, বন্যা দুর্গতদের সহায়তা, কৃতী সন্তানদের সম্মাননা, বাল্যবিবাহ বন্ধ ও মেধাবী ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়ার জন্য যেভাবে সহায়তা করে যাচ্ছে তা সত্যিই প্রসংশার দাবীদার। ভবিষ্যতে ছদাহা সমিতির যেকোন মহৎ উদ্যোগে সকলে পাশে থাকবো। এ আয়োজন যেন ভবিষ্যতে অব্যাহত রাখা হয়। মিলনমেলায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে ছদাহার বিসিএস ক্যাডারদের সম্মাননা, মেজবান ও র্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়।