সাতকানিয়ার ছদাহায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা

5

সাতকানিয়ায় এক যুবককে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে। হামলায় আহত এক বন্ধুকে উদ্ধার করতে গিয়ে তিনি নিজে খুন হন বলে জানা গেছে। নিহত মো. তারেক (২৬) উপজেলার ছদাহা ইউনিয়নের মুহুরী পাড়ার ছিদ্দিক আহমদের ছেলে। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ছদাহা ইউনিয়নের নুনু চৌধুরী বাজারের উত্তর পাশে মাঝের পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আরো দুইজন গুরুতর আহত হন। আহতরা হলেন ছদাহা ইউনিয়েনের মুহুরী পাড়ার শাহ আলমের ছেলে মো. হেলাল উদ্দিন (২২) ও হাসমত আলী চৌকিদারের দোকান এলাকার ভূঁইয়া বাড়ির মো. এনামুল হকের ছেলে মো. শহিদ (২২)। তারা বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
নিহত তারেকের চাচাতো ভাই ফরহাদ ইসলাম জানান, নুনুর বাপের হাট এলাকার মিনহাজ ও জুয়েলের সাথে তারেকের বন্ধু শহিদের দীঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। গতকাল বিকালে চাকরির কারণে শহিদ নুনুর বাপের হাটে গেলে তাকে আটক করে মিনহাজ ও জুয়েলসহ তাদের সাঙ্গ-পাঙ্গরা বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। খবর পেয়ে তারেক ও তার তিন বন্ধু হেলাল, আবদুল্লাহ ও রকিবকে সাথে নিয়ে একটি সিএনজি অটোরিকশাযোগে ঘটনাস্থলে যান। এসময় মিনহাজরা তারেককে কুড়াল দিয়ে দুই পায়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। হামলাকারীদের ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন হেলালও। এসময় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তারেক ঘটনাস্থলেই মারা যান। এ খবর তারেক ও তার বন্ধুদের পরিবারে পৌঁছলে তাদের স্বজনরা ঘটনাস্থল থেকে মৃত তারেক, আহত হেলাল ও শহিদকে উদ্ধার করে কেরানীহাটের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে আসে। পরে গুরুতর আহত হেলাল ও শহিদ দুইজনকে চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়।
সাতকানিয়া থানার ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, প্রাথমিকভাবে পূর্ব বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। গুরুতর আহত অপর দ্ইুজনকে চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অপরাধীদের ধরার জন্য ইতিমধ্যে পুলিশ কাজ শুরু করেছে।