সম্প্রীতির বন্ধন অটুট থাকুক মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ সজীব

35

 

আমার জন্ম হাটহাজারী উপজেলার পশ্চিম ধলই গ্রামের আবদুল জলীল সুফী বাড়ীর এক মুসলিম পরিবারে। বাড়ির পশ্চিমে বড়ুয়া পাড়া আর পূর্বে হিন্দুরা বসবাস করে। আমাদের গ্রামে রয়েছে এক সম্প্রীতির মিল। এখানে মুসলিম-হিন্দু-বৌদ্ধ সবাই একইসাথে বসাবাস করে। একজনের সুখ-দুঃখে অন্য জন এগিয়ে আসে। মুসলমানদেন মসজিদে ইবাদত কিংবা বড়ুয়া/হিন্দুদের মন্দিরে পূজা করতে কোন সময় সমস্যা হয়নি। আমরা যখন মুসলিমরা মসজিদে ইবাদত করি তখন অন্য ধর্মাম্বলি যারা আছে তারা মন্দিরের মাইক বন্ধ করে রাখে যাতে আমাদের নামাজ পড়তে কোন অসুবিধা না হয়। আমরা পারিবারিক অনুষ্ঠানগুলো একে অন্যজনের সাথে ভাগ করে নিই। সম্প্রতি দূর্গ উৎসবকে নিয়ে দেশে একটা দাঙ্গা বয়ে গেছে। অনেক মানুষের ক্ষতি হয়েছে। কয়েকজন নিহত ও অনেকে আহত হয়েছে। সম্প্রীতির বন্ধনে আগাত হেনেছে। একজন প্রকৃত মুসলমি কখন ও কোন অমুসলিমদের আক্রমণ করবেনা। তাদের মন্দির, বাড়ি ঘর জ্বালিয়ে দিবেনা। যারা এসব করে তাদের কোন ধর্ম নাই। তারা উগ্র। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মদ (দ.) বলেছেন, ‘সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম এলাকায় সংখ্যালঘু অমুসলিমরা আমানতের মত। যারা তাদের কষ্ট দেবে, কেয়ামতের দিন আমি তাদের বিরুদ্ধে আল্লাহ্ কাছে নালিশ করব’। নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর হাদিস থেকে বুঝা যায় সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম এলাকায় অমুসলিমরা কতটা নিরাপদ থাকার কথা।
আমরা মুসলমানরা অন্য কাউকে দেখলে প্রথমে সালাম দিয়ে কথা শুরু করি ‘আসসালামু আলাইকুম’। যার অর্থ আপনার উপর শান্তি বর্ষিত হোক। এটাই মুসলিমদের সম্ভাষণ। আর সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিমদের এ বাংলাদেশে আমরা সকল ধর্মের মানুষ একসাথে বসবাস করব। তাকবে না ধর্মের নামে কোন উগ্রবাদী। আমরা সুন্দর অসম্প্রদায়িক আগামীর একটি বাংলাদেশ চাই।