সত্যনিষ্ঠ সাংবাদিকতা হোক পূর্বদেশ এর পথচলা

27

লায়ন মো. আবু ছালেহ্

১১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আমি পূর্বদেশ পরিবারের সবাইকে অভিনন্দন জানাই। এদেশের গণমাধ্যম দেশ ও জাতির বিভিন্ন ক্রান্তিকালে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। অতীতের ধারাবাহিকতায় সাহসী, নির্মোহ ও বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা চর্চায় দৈনিক পূর্বদেশের অব্যাহত ভূমিকা প্রশংসার দাবিদার। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে তারই সুযোগ্য কন্যা দেশরতœ শেখ হাসিনার সাহসী ও দৃঢ় নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় ইতিমধ্যে বাংলাদেশ বিশ্বব্যাপী নজর কেড়েছে, অর্জন করেছে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা। একইসঙ্গে সত্যকে তুলে ধরতে আপসহীন অবস্থান আছে এই দৈনিকের। সত্য প্রকাশের ক্ষেত্রে দল, মত ও মতাদর্শিক বিশ্বাস প্রাধান্য পায় না। পূর্বদেশ এর প্রতিবেদনে দল-মত নির্বিশেষে এ ধরনের নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গি সবার কাছে অত্যন্ত পছন্দনীয় বিষয়। প্রতিষ্ঠার পর অল্পদিনে জনপ্রিয়তা অর্জন এবং যুগ পূর্ব প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সেই জনপ্রিয়তা ধরে রাখার ক্ষেত্রে এ বিষয়টা প্রধান অবলম্বন হিসেবে কাজ করছে। পাঠকের চাহিদা ও পছন্দকে প্রাধান্য দিয়ে সঠিক খবর পাঠকের মাঝে পৌঁছে দিতে সচেষ্ট হবে। পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী, বিজ্ঞানমনস্ক ও দেশপ্রেমিক প্রজন্ম তৈরিতে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করবে। দীর্ঘ পথচলায় সবসময় মুক্তিযুদ্ধের পক্ষেই থেকেছে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে গৌণ করে দেখেনি। আর কখনও সত্যের প্রশ্নে আপস করে না।
অতীতের ন্যায় আগামী দিনেও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন এবং পেশাদারিত্ব বজায় রেখে দেশ ও দশের উন্নয়নে নিবেদিত থাকবে বলে আমার বিশ্বাস। অতীতে যে ভূমিকা রেখে এসেছে, আশা করি ভবিষ্যতে আরও ভালোভাবে সেই ভূমিকা রেখে যেতে পারবে। দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে, সাংবিধানিক শাসনের স্বার্থে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে এবং ভবিষ্যতে থাকবে। সত্যনিষ্ঠ সাংবাদিকতা হোক পূর্বদেশ এর পথচলা। পূর্বদেশ মিশে গেছে প্রাণের সাথে। আমি পত্রিকাটির সফলতা কামনা করি এবং প্রকাশনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।