‘শ্রমিক সুস্থ থাকলে দেশের অর্থনীতিও সুস্থ থাকবে’

3

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিজিএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম বলেন, শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতকরণ ছাড়া কারখানা চলবে না। কারখানা না চললে দেশের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব নয়। পোশাক শিল্প শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় গণটিকা প্রদানে বিজিএমইএ’র অনুরোধের প্রেক্ষিতে কার্যক্রম শুরু করার জন্য প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় নাসিরাবাদ এলাকার আরডিএম গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইউনি গার্মেন্টসের মাঠে চট্টগ্রামের পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক-কর্মচারীদের গণটিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এছাড়া কর্মসূচির প্রথম দিনে নাসিরাবাদ এলাকায় ইউনি গার্মেন্টসসহ ১২টি পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠানের ১৩ হাজার শ্রমিককে টিকা প্রদান করা হয়।
তিনি বলেন, করোনা মহামারিতে পোশাক শিল্পে চরম বিপর্যয় নেমে এসেছিল। শ্রমিকদের বেতনভাতা পরিশোধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা ঋণ সহায়তা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানা খোলা রাখার সিদ্ধান্তের ফলে বর্তমানে রপ্তানি আদেশ বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে পোশাক শিল্প ঘুরে দাঁড়ানোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর বাংলাদেশের অর্থনীতি ও কর্মসংস্থানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের জন্য পোশাক শিল্প মালিক ও শ্রমিকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দিক নির্দেশনায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানা খোলা রেখে অর্থনীতির চাকা সচল রাখায় বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের অর্থনীতি অনেক স্থিতিশীল রয়েছে। সংক্রমণ প্রতিরোধে স্বাস্থ্য সুরক্ষার অংশ হিসেবে পোশাক শিল্প শ্রমিকদের গণটিকা প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কারণ শ্রমিকরা সুস্থ থাকলে দেশের অর্থনীতিও সুস্থ থাকবে। পোশাক শিল্প কারখানার শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় শিল্প মালিকদের গৃহীত পদক্ষেপের প্রশংসা করে তিনি আরো বলেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষাসহ বিভিন্ন কল্যাণমূলক পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে শ্রমিক-মালিক সম্পর্ক বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশের অর্থনীতির অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে হবে।
সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াস চৌধুরী, চট্টগ্রামের শিল্প পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সোলাইমান, কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর চট্টগ্রামের ডিআইজি আবদুল্লাহ আল সাকিব মুবাররাত, চট্টগ্রাম পোশাক শিল্প মালিকদের পক্ষে বিজিএমইএ’া প্রাক্তন প্রথম সহ-সভাপতি এসএম আবু তৈয়ব ও শ্রমিকদের পক্ষে ধন্যবাদ সূচক বক্তব্য রাখেন- ইউনি গার্মেন্টস্্ লি. এর শ্রমিক সুজিতা দত্ত।
এসময় উপস্থিত ছিলেন- বিজিএমইএর সহ-সভাপতি রাকিবুল আলম চৌধুরী, পরিচালক এএম শফিউল করিম (খোকন), এম আহসানুল হক, মো. হাসান (জ্যাকী), মিরাজ-ই-মোস্তফা (কায়সার), প্রাক্তন প্রথম সহ-সভাপতি এসএম আবু তৈয়ব, প্রাক্তন সহ-সভাপতি মোহাম্মদ ফেরদৌস, প্রাক্তন পরিচালক শেখ সাদী, খন্দকার বেলায়েত হোসেন, মোহাম্মদ আতিক। উল্লেখ্য ইপিজেড সহ বিজিএমইএর সদস্যভুক্ত চট্টগ্রামের ৩৫০টি খোলা পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫ লাখ শ্রমিকদের পর্যায়ক্রমে গণটিকা প্রদান করা হবে।