শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে এগিয়ে চলেছে দেশ

4

সুপ্রতিম বড়ুয়া

যতই বিষোদগার করেন, যতদিন বাংলায় পাখিরা গান গাইবে, নদীর কলতান থাকবে, ততদিন বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যা শেখ হাসিনা থাকবেন। একজনকে বাঙালির স্বাধীনতার জন্য, আরেকজনকে বাঙালির মুক্তির জন্য বিধাতা পাঠিয়েছেন। ২০০৮ সালের যুগান্তকারী নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয়লাভের মধ্যদিয়ে বাংলাদেশ প্রবেশ করে উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির এক নতুন সময়ে। বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশরতœ শেখ হাসিনার ‘দিন বদলের সনদ’ কে সামনে রেখে ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনের এক মহা কর্মযজ্ঞ শুরু হয়। একই সাথে ভিশন-২০২১ প্রণয়নের মাধ্যমে দিকহারা বাংলাদেশ যেন পায় নতুন লক্ষ্য। পদ্মা সেতু নির্মাণ, মেট্রো রেল নির্মাণের মতো বিশাল সব মেগা প্রকল্পের পাশাপাশি শতভাগ বিদ্যুতায়ন, প্রতিটি মানুষের কাছে ইন্টারনেট সুবিধা পৌঁছে দেওয়া, শক্ত অর্থনীতি তৈরি করা, শতভাগ শিক্ষার হার অর্জন করা, দারিদ্র্য নির্মূল করার মতো জিবনমান উন্নয়নের বিভিন্ন ক্ষেত্রে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে কাজ করা শুরু করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার। ২০২১ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এক অনন্য মাইলফলক অর্জন করেছে। প্রথমবারের মতো গণতান্ত্রিক সরকার হিসেবে টানা ১২ বছর দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছে আওয়ামী লীগ আর চালকে আসনে আছেন বঙ্গবন্ধু সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা। শুধু উন্নয়ন কর্মকাÐই নয়, এই ১২ বছরে নানান ধরনের প্রাকৃতিক ও মানবসৃষ্ট দুর্যোগও সামাল দিয়েছেন শেখ হাসিনা। দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র, ধ্বংসাত্মক রাজনীতি, ঘূর্ণিঝড় ফণী, সুপার সাইক্লোন আম্পান এবং সা¤প্রতিক বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের মতো সমস্যাগুলোও নিপুণ হাতে সামাল দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আমরা সল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে বের হয়ে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জন করেছি। শুধু তাই নয়, যে অত্যাচারী শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে আমরা স্বাধীনতার সূর্য ছিনিয়ে এনেছিলাম, উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় মাত্র পঞ্চাশ বছরে সেই পাকিস্তানকে পেছনে ফেলেছি প্রায় সবদিক থেকে। নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবীদ অমর্ত্য সেন বলেছেন, সামাজিক-অর্থনৈতিক সবক্ষেত্রেই বাংলাদেশ পাকিস্তান থেকে অনেক এগিয়ে। আমাদের রফতানি রিজার্ভ, রেমিটেন্স, বিদ্যুৎ উৎপাদন আজ পাকিস্তান থেকে বেশি। বর্তমানে দেশের মোট বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা ২৫ হাজার ৫১৪ মেগাওয়াট। যার সুফল এখন ১০০ শতাংশ জনগণ ভোগ করতে পারছে। রপ্তানি ও রেমিট্যান্স আয়ে আজ বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪৬ দশমিক ৪৩ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে। বর্তমান বাংলাদেশের জনগণের গড় আয়ু ৭২.৩ বছর। মাতৃ মৃত্যুহার, শিশুমৃত্যু হার, জন্মহার পাকিস্তানের চেয়ে কম। স্বাধীন বাংলাদেশ প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে, তৎকালীন পশ্চিম-পাকিস্তানের উন্নয়ন পুরোপুরিভাবেই ছিল পূর্ব-পাকিস্তান তথা বাংলাদেশ নির্ভর। আন্তর্জাতিক মহলে তাই আজ পাকিস্তানের চেয়ে বাংলাদেশের মর্যাদা অনেক অনেক বেশি। এমনকি স্বাধীনতার পর ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ আখ্যায়িত করে যারা অপমান করেছিল, সেই তাদের কণ্ঠেই এখন বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা। সরকার এসডিজি এবং জাতীয় অঙ্গীকারের পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করে চলেছে। যার মধ্যে সাক্ষরতা বিস্তার, দক্ষতা উন্নয়ন, প্রশিক্ষণ এবং জীবনব্যাপী শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টির জন্য উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টিতে ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে ঝরেপড়ার হার কমে যাওয়ায় শিক্ষার হারও বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৯ পর্যন্ত বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষমতা ছিলো ২২,৫৬২ মেগাওয়াট, দেশের ৯৪ শতাংশ জনগণ এখন বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে। আইসিটি খাতে রপ্তানি বিষয়টি অবাস্তব মনে হলেও ২০১৯ সালে আইসিটি খাতে রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। গণপরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়নের লক্ষ্যে রাজধানীতে ২০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের মেট্রোরেল স্থাপন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে, যা ১৬টি স্টেশন ঘণ্টায় প্রায় ৬০ হাজার যাত্রী পরিবহনের সক্ষমতা রাখবে। বাঙালির স্বপ্নের সেতু ‘পদ্মা বহুমুখী সেতু’র কাজ প্রায় সমাপ্তির পথে, যা নিজস্ব বাজেটেই সম্পন্ন হচ্ছে। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের মতে, লিঙ্গবৈষম্য দূরীকরণে দক্ষিণ এশিয়ায় শীর্ষে বাংলাদেশ। যেকোনো সময় জরুরি ভিত্তিতে সেবা পেতে আধুনিক বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও চালু হয়েছে ইমার্জেন্সি সার্ভিস ‘৯৯৯’ কল সেবা। এ ছাড়া জনগণের সেবাদানে অন্যান্য কল সেবাগুলো চালু হয়েছে; দুদক, নারী নির্যাতন বা বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ, সরকারি তথ্যসেবা, স্বাস্থ্য বাতায়ন, দুর্যোগের আগাম বার্তা, জাতীয় পরিচয়পত্র তথ্য ও মানবাধিকার সহায়ক কল সেন্টার। দারিদ্র্য হ্রাস, সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, গৃহহীন ৯৯ লাখ মানুষকে ঘর তৈরি করে দেওয়া, সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রম, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা দক্ষতা, শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি, তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়ন, মানবসম্পদ উন্নয়নসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে সফলতা অর্জন করেছে বর্তমান বাংলাদেশ। অর্থনীতির প্রতিটি সূচকে সাধিত হয়েছে অপরিমেয় অগ্রগতি। স্বপ্নের পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, কর্ণফুলি টানেল, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট, পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প তার জ্বলন্ত উদাহরণ।
সকল অর্জনকে ম্লান করতে ধেয়ে এসেছিল মহামারি করোনা। দেশদ্রোহী অপশক্তি একপ্রকার খুশি মনে বসেই ছিল প্রাকৃতিক বাহানায় জনগণকে বিভ্রান্ত করতে। অর্থনৈতিক সংকট চরম আকার ধারণ করবে, অজস্র লোকের লাশের গন্ধে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হবে গোটা দেশ এটা আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য সংস্থার ভাবনা ছিল কমপক্ষে ৩ কোটি লোক আক্রান্ত হবে প্রথম ধাক্কায় এবং ৫০ লক্ষ লোক মারা যাবে এমনটা বলা হচ্ছিল। অর্থনৈতিক সংকট, খাদ্যসংকট তো হয় ই নি বরং সে সময় বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বেড়েছে। কেননা সরকার সিস্টেমেটিক ওয়েতে চালু রেখেছে কলকারখানা সহ সব শিল্প প্রতিষ্ঠান। এমনকি করোনা প্রতিরোধে ভ্যাকসিন আমদানি ও ব্যবহারে দুর্দান্ত দূরদর্শিতা দেখিয়েছে শেখ হাসিনার সরকার। যার ফলশ্রুতিতে দেশরতœ শেখ হাসিনাকে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়েছে এমনকি শান্তিতে নোবেল বিজয়ী কৈলাশ সত্যার্থী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের ভূয়সি প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেছেন ‘শেখ হাসিনার সাথে দেখা করা আমার জন্য সবসময়ই আনন্দের এবং অনুপ্রেরণার বিষয়। আমি বাংলাদেশের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ শিশুদের শিক্ষা, সুরক্ষা এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করার চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করার জন্য তাঁর প্রতি আমার প্রশংসা প্রকাশ করছি, বিশেষ করে মহামারি চলাকালীন এবং মহামারী পরবর্তী সময়ে যা ছিল অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং। তাঁর নেতৃত্বে মহামারি চলাকালীন এবং মহামারি পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচি এবং সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচির কিছু সাফল্যের গল্প, বিশেষ করে শিশুদের জন্য, আফ্রিকা এবং লাতিন আমেরিকার অনেক উন্নয়নশীল দেশের জন্য উদাহরণ হতে পারে, যারা এই পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’ স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি বারবার বাংলাদেশকে পেছনে টেনে ধরতে চেয়েছে। তাদের কালো হাত এবং অপরাজনীতি সর্বদা স্বাধীন বাংলাদেশকে অন্ধকার মেঘে ঢেকে দেওয়ার জন্য তৎপর। বঙ্গবন্ধুর পরিবারকে নিঃশেষ করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপর এপর্যন্ত ২১ বার হামলা চালানো হয়েছে। ১৯৮১ সালে দেশে ফেরার পরের বছরই বঙ্গবন্ধুর খুনীদের দল ফ্রিডম পার্টি হত্যা চেষ্টা চালায়। তবে প্রাণের ভয় দেখিয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে থামিয়ে রাখা যায় না। সেই আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে দোর্দণ্ডপ্রতাপে দেশ পরিচালনার মাধ্যমে বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। তাই আজ বাংলাদেশ পৃথিবীর বুকে এক বিস্ময়। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখা ও অপশক্তি দমনে দেশরত্ন শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও সফল কূটনীতিক প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। যার সর্বশেষ সংযোজন সা¤প্রতিক সময়ের ভারত সফর। শুভ জন্মদিন বাংলার মানুষের আশার আলো, হৃদয়ের স্পন্দন ও ভরসার শেষ আশ্রয়স্থল দেশরতœ শেখ হাসিনা।
লেখক : প্রাবন্ধিক