লালদিঘি মাঠে চার মন্ত্রীর সংবর্ধনা ২৬ জানুয়ারি

64

চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পাওয়া নেতাদের সংবর্ধনা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগ। উত্তর, দক্ষিণ জেলা ও নগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আগামী ২৬ জানুয়ারি লালদিঘি মাঠে এ সংবর্ধনা দেয়া হবে। সংবর্ধনা সভায় চট্টগ্রামের সংসদ সদস্যরাও উপস্থিত থাকবেন। ইতোমধ্যে অধিকাংশ এমপি ও মন্ত্রিদের স্থানীয়ভাবে অভ্যর্থনা জানানো হয়েছে।
মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন পূর্বদেশকে বলেন, ‘উত্তর, দক্ষিণ জেলা ও নগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মন্ত্রিদের সংবর্ধনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। সেদিন লালদিঘি মাঠে বিশাল জমায়েত করে মন্ত্রিসভায় চট্টগ্রাম থেকে স্থান পাওয়া নেতাদের সংবর্ধনা দিবে চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগ।’
গতকাল রাতে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান পূর্বদেশকে বলেন, ‘আগামী ২৬ জানুয়ারি লালদিঘি মাঠে একটি অনুষ্ঠান হবে। যেটিতে চট্টগ্রামের চারজন মন্ত্রী উপস্থিত থাকবেন। এ অনুষ্ঠানকে আমরা সংবর্ধনা সভা বলবো না। আমরা সমাবেশ হিসেবেই এটি দেখবো। এখনো আমাদের নেতাদের মধ্যে বৈঠক হচ্ছে। বৈঠকে আরো কিছু সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’
এদিকে গত বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামে আসেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ। সড়কে প্রতিবন্ধকতা ও সাধারণ মানুষের চলাচলে ভোগান্তির শঙ্কায় আগেভাগেই কোনধরনের সংবর্ধনা দেয়া থেকে নেতাদের বিরত থাকার জন্য অনুরোধ জানান তিনি। কিন্তু এমন নির্দেশনা অমান্য করেই নেতাকর্মীরা বিমানবন্দরে নিরাপত্তা বেষ্টনী ভেঙ্গে মন্ত্রী জাবেদকে অভ্যর্থনা জানান। পরে নগরীর সার্সন রোডের নিজ বাসভবনে নেতাকর্মীদের সাথে দফায় দফায় বৈঠক করেন। সেখানেই নেতাকর্মীরা ফুল দিয়ে ভূমিমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান।
মন্ত্রী হওয়ার পর গতকাল সকালেই প্রথম ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে আসেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও শিক্ষা উপ-মন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। তিনি এসেই সাংগঠনিক কাজের পাশাপাশি প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেন।
গতকাল বিকালে বান্দরবানের রাজার মাঠে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিংকে সংবর্ধনা দেয় জেলা আওয়ামী লীগ। নেতাকর্মিরা সেখানে তোরণ-ফুলে বরণ করে নেন বীর বাহাদুরকে। সাতকানিয়া কেরানীহাট হতে পাঁচ শতাধিক মোটরসাইকেল, হাইচ-মাইক্রো নিয়ে বান্দরবানে ছুটে যায় বীর বাহাদুরের পতাকাবাহী গাড়ি। পথে পথে ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে বীর বাহাদুরকে বরণ করে নেন বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সাধারণ মানুষ। অন্যদিকে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ আগামী মঙ্গলবার চট্টগ্রামে আসার কথা রয়েছে।