রাঙ্গুনিয়ার হাজী সৈয়দ আলী সড়ক সংস্কারের অভাবে চার ইউনিয়নের মানুষের ভোগান্তি

4

মাসুদ নাসির, রাঙ্গুনিয়া

রাঙ্গুনিয়া উপজেলার দক্ষিণ রাঙ্গুনিয়ার মানুষের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম হাজী সৈয়দ আলী সড়ক। কাপ্তাই সড়কের গোডাউন ব্রীজ দিয়ে সড়কটি চলে গেছে দক্ষিণ রাঙ্গুনিয়ার চার ইউনিয়নের ওপর দিয়ে। লক্ষাধিক মানুষ বিভিন্ন যানবাহনে এই সড়কটি দিয়ে চলাচল করেন। এছাড়া প্রতিদিনই বিভিন্ন ভাড়ি যানবাহনও চলে এই সড়ক দিয়ে। এর ফলে সড়কজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য গর্ত। ভাঙা সড়কে চলাচলে ভোগান্তিতে পড়ছেন যাত্রীরা। তবে এটি সংস্কারে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের হস্তক্ষেপে বৃহৎ একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। সম্প্রতি সরেজমিনে দেখা গেছে, ১৪ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে এই সড়কটি গোডাউন ব্রীজ থেকে শুরু হয়ে রাঙ্গামাটি-বান্দরবান সড়কের ফেরিঘাট এলাকার সাথে সংযুক্ত হয়েছে। এছাড়া শিলক কালিন্দিরানী সড়কও এটির সাথে সংযুক্ত। এই সড়ক পথে গোডাউন ব্রীজ হয়ে সরফভাটা, শিলক, কোদালা এবং পদুয়া ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ যাতায়াত করেন। এছাড়া এই সড়কটি বান্দরবান যাওয়ার বিকল্প সড়ক হিসেবেও ব্যবহৃত হয়। প্রতিদিন শত শত বিভিন্ন ছোট-বড় যানবাহন এটি দিয়ে চলাচল করে। এতে সড়কের গোডাউন থেকে শিলক-কোদালা সংযুক্ত অংশ পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার অংশে বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সড়কের অধিকাংশ অংশে তীব্র খানাখন্দের পাশাপাশি কোথাও আবার ডোবাই রূপ নিয়েছে। ফলে চরম ভোগান্তিতে চলাচল করেন এতদ অঞ্চলের মানুষ। সরফভাটা ক্ষেব্রবাজার এলাকার বাসিন্দা আবদুর কাদের জানান, এ সড়কের বিস্তিীর্ণ অংশে পানি ও গর্ত জমে যাওয়ায় চলাচলে মারাতœক ঝকির মাঝে আমাদের চলতে হচ্ছে। বর্ষাকালে আমাদের কষ্টের মাঝে সড়কে চলতে হচ্ছে। সড়কের গর্তে পড়ে যাত্রীবাহী নানা যানবাহন দূর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছে। সড়কটি দিযে হাজার মানুষ চলাচল করে প্রতিদিন। সড়কটি সংস্কার কাজ কওে জনও যান চলাচল উপযোগি করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষের নিকট দাবী জানাচ্ছি। সড়কটির বেহাল অবস্থার বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সাথে যোগাযোগ করা হলে জানা যায়, জনগুরুত্বপূর্ণ সৈয়দ আলী সড়কের গোডাউন থেকে শিলক-কোদালা সংযোগ সড়ক পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার অংশ সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের বিশেষ হস্তক্ষেপে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) “ফ্লাড” প্রকেল্পে এটি অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। সম্প্রতি সড়কটি সংস্কারের উদ্যোগের অংশ হিসেবে এটি পরিদর্শন করেন উপজেলা প্রকৌশলী মো. দিদারুল আলম ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। সরফভাটা ইউপি চেয়ারম্যান শেখ ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী জানান, দক্ষিন রাঙ্গুনিয়ার ৪ ইউনিয়নের এ সড়কটি চলাচল অনুপযোগি হয়ে পড়েছে অনেকদিন আগে থেকে। সড়কটি সংস্কার কাজ না করায় মানুষ চলাচলে নানা দূর্ভোগের সম্মূখিন হচ্ছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ করার জন্য দ্রুত সড়কটির সংস্কার কাজ করলে মানুষ উপকৃত হবে।
এ সময় উপজেলা প্রকৌশলী মো. দিদারুল আলম বলেন, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি’র নির্দেশনা অনুযায়ী সড়কটি সংস্কারে “ফ্লাড” প্রকল্পে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। এর আওতায় গোডাউন ব্রীজ থেকে ৬ কিলোমিটার সড়কে ইতিপূর্বের ২৫ মিলির পরিবর্তে ৪০ মিলি ড্যান্স কার্পেটিং দ্বারা উন্নয়ন করা হবে। সড়কের পানি নিষ্কাষন ব্যবস্থা যেখানে নেই এরকম ৪০০ মিটার অংশে আরসিসি ঢালাই করা হবে। এছাড়া এসব স্থানে বেহাল কালভার্টগুলোও পুন:নির্মাণ করা হবে। আনুমানিক ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে এসব কাজ বাস্তবায়ন করা হবে বলে তিনি জানান।