রাঙামাটিতে আ.লীগ প্রার্থীসহ মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৫ জন

26

রাঙামাটি প্রতিনিধি

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৯৯ পার্বত্য রাঙামাটি আসনে আওয়ামী লীগের দীপংকর তালুকদারসহ (বর্তমান সংসদ সদস্য) মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৫ প্রার্থী। জেলার মোট ১০ উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনটিতে এবারের অন্য প্রার্থীরা হলেন- সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) সমর্থিত (স্বতন্ত্র) সাবেক এমপি ঊষাতন তালুকদার, জাতীয় পার্টির হারুনুর রশিদ মাতব্বর, তৃণমূল বিএনপির শাহ হাফেজ মিজানুর রহমান ও বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তি জোটের অমর কুমার দে। তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. মোশারফ হোসেন খান এসব প্রার্থীদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তিনি বলেন, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাঙামাটি আসনে সবশেষ মোট পাঁচ প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগের ১ জন, জাতীয় পার্টির ১ জন, তৃণমূল বিএনপির ১ জন, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তি জোটের ১ জন ও স্বতন্ত্র ১ জন।
এদিকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী আরেক শীর্ষ নেতা নিখিল কুমার চাকমা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও দল ও দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন করে জমা দেননি বলে জানান তিনি। নিখিল কুমার বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড ও রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান। এছাড়া আওয়ামী লীগের আরও ৬ নেতা দলীয় মনোনয়ন চাইলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে তাদের কেউ মনোনয়নপত্র জমা দেননি। বৃহস্পতিবার সদলবলে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. মোশারফ হোসেন খানের নিকট মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন সপ্তমবারের মতো দলের মনোনীত প্রার্থী আওয়ামী লীগের দীপংকর তালুকদার। একই দিন মনোনয়নপত্র জমা দেন জাতীয় পার্টির হারুনুর রশিদ মাতব্বর, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তি জোটের অমর কুমার দে ও তৃণমুল বিএনপির শাহ হাফেজ মিজানুর রহমান। এর আগে ২৮ নভেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ঊষাতন তালুকদার (জেএএস স্বতন্ত্র)।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য দীপংকর তালুকদার দলীয় মনোনয়নে ১৯৯১ সাল থেকে আসনটিতে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করে আসছেন। এর আগে দীপংকর জয়ী হয়েছিলেন ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০৮ এবং ২০১৮ সালের নির্বাচনে।
হেরেছিলেন ২০০১ সালে বিএনপির মণিস্বপন দেওয়ান এবং ২০১৪ সালের নির্বাচনে জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী ঊষাতন তালুকদারের কাছে। ২০০৮ সালে নির্বাচিত হলে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান তিনি।
দীপংকর বলেন, আসনটিতে নিশ্চিত জয়ের সম্ভাবনায় দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন। এবারও বিপুল ভোটে জয়ী হবেন তিনি।
তার এবারের নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি হলো রাঙামাটিকে একটি আন্তর্জাতিক মানের পর্যটননগরী গড়ে তোলা, চট্টগ্রামের ঢালারমুখ হতে রাঙামাটি পর্যন্ত চারলেনের সড়ক নির্মাণ, চট্টগ্রাম থেকে রাঙামাটি রেল যোগাযোগ স্থাপন, প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় ও কৃষি বিশ^বিদ্যালয় স্থাপনসহ উন্নয়নের ধারাবাহিকতা এগিয়ে নেওয়া। জেএসএস সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী ঊষাতন তালুকদার ২০১৪ সালের নির্বাচনে আসনটিতে আওয়ামী লীগের দীপংকরকে হারিয়ে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছিলেন। ২০১৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দীপংকরের কাছে হেরে যান তিনি। এবারের নির্বাচনেও এ দুই তালুকদারের মধ্যে তীব্র প্রতিদ্ব›িদ্বতার সম্ভাবনা রয়েছে।