যৌতুকের মামলায় পুলিশ সদস্যকে গ্রেপ্তারে পরোয়ানা

2

নিজস্ব প্রতিবেদক

স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগে এক ট্রাফিক সার্জেন্টের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। যৌতুকের জন্য এ নির্যাতনের অভিযোগ আনা হয়েছে তার বিরুদ্ধে। গতকাল বুধবার দুপুরে চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর বিচারক বেগম ফেরদৌস আরা এ আদেশ দেন। মামলার আসামি সার্জেন্ট ইকবাল হোসেন বর্তমানে খুলনায় কর্মরত। বাদী ডা. সোনিয়া সামাদ মিরসরাইয়ের বারৈয়ারহাট এলাকায় একটি ক্লিনিকে চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত আছেন।
সংশ্লিষ্ট আদালত থেকে প্রাপ্ত তথ্য মতে, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১১ (গ) ধারায় (যৌতুকের জন্য জখম করা) মামলাটি করা হয়েছিল। বিয়ের পর থেকে স্ত্রীর নামে থাকা ঢাকার সাভারে একটি বাড়ি ও একটি প্রাইভেটকার দখলে নিতে চাপ দিচ্ছিলেন ইকবাল। কিছু টাকা এবং স্ত্রীর গহনা ইকবাল আত্মসাৎ করেন। গত ২৫ জুলাই যৌতুকের জন্য মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জের বাসায় ইকবাল স্ত্রীকে মারধর করেন বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়। এসময় ৯৯৯ নম্বরে ফোন করলে পুলিশ এসে ওই নারীকে উদ্ধার করেন। আদালত অভিযোগ আমলে নিয়ে মিরসরাই উপজেলার সমাজসেবা কর্মকর্তাকে ২৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে তদন্ত শেষে প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন।
এ বিষয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট খন্দকার আরিফুল আলম জানান, সমাজসেবা কর্মকর্তা তদন্ত শেষে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেন। আদালত তদন্ত প্রতিবেদনের ওপর সন্তুষ্ট হয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন।