যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সহযোগিতা স্থগিত করলো চীন

14

পূর্বদেশ অনলাইন
জলবায়ু পরিবর্তন, সামরিক আলোচনা ও আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলাসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সহযোগিতা স্থগিত করেছে চীন। সিনিয়র ডেমোক্র্যাট ন্যান্সি পেলোসির নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্রের একটি কংগ্রেসশনাল প্রতিনিধি দল তাইওয়ান সফরের পর এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে বেইজিং। এছাড়া ন্যান্সি পেলোসি ও তার পরিবারের উপর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণাও দিয়েছে চীন। তারা বলছে, এই সফরের মধ্য দিয়ে তাইওয়ানে চীনের সার্বভৌমত্বকে চ্যালেঞ্জ জানানো হয়েছে। স্ব-শাসিত দ্বীপ তাইওয়ান নিজেকে মূল ভূখণ্ড থেকে আলাদা বলে মনে করে থাকে। শুক্রবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সহযোগিতা স্থগিতের এই ঘোষণা দিয়েছে। তারা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের প্রতিরক্ষা কর্মকর্তাদের মধ্যে আলোচনা বাতিল হবে, এছাড়া অবৈধ অভিবাসী ফেরানো, জলবায়ু পরিবর্তন এবং আন্তর্জাতিক অপরাধের তদন্তে সহযোগিতা বাতিল হয়ে যাবে। বিশ্বের অন্যতম বড় দুই শক্তি গত কয়েক বছর ধরে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আন্তরিক কূটনৈতিক সংযোগ বজায় রাখছিল। গত বছর গ্লাসগো জলবায়ু সম্মেলনে কার্বন নিঃসরণ কমাতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে জরুরি ভিত্তিতে কাজ চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়। এছাড়া দেশ দুইটি ফেন্টানিলের মতো মাদকের অবৈধ বাণিজ্য নিয়ন্ত্রণে বিরল ঐক্যমতে সম্মত হয়। চীনের তীব্র বিরোধিতা উপেক্ষা করে ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ান সফর করায় এসব সহযোগিতা স্থগিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ন্যান্সি পেলোসি ও মার্কিন প্রতিনিধি দলের তাইওয়ান সফরকে ‘মারাত্মক উস্কানি’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে ওই বিবৃতিতে। শুক্রবার টুইটারে পোস্ট করা এক বিবৃতিতে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনিয়াং মার্কিন পররাষ্ট্র নীতির কঠোর সমালোচনা করেন। ২০২০ সালে নিরস্ত্র কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড মার্কিন পুলিশের হাতে নিহতের ঘটনা উল্লেখ করে তিনি লেখেন, ‘আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে ‘বিশ্ব পুলিশ’ হিসাবে নিজেকে গ্রহণ করার অনুমতি দিতে পারি না এবং অন্য দেশগুলোতে জর্জ ফ্লয়েডের মতো আচরণ করতে পারি না যাকে তারা ইচ্ছামতো ধমক দিতে পারে এবং শ্বাসরোধ করতে পারে’। শুক্রবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি কারিন জেন-পিয়ার্স বলেন, ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফরের সব অধিকার রয়েছে। আর চীনের নতুন পদক্ষেপ মৌলিকভাবে দায়িত্বজ্ঞানহীন বলেও দাবি করেন তিনি। তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের স্বার্থ এবং মূল্যবোধ রক্ষা করার পাশাপাশি বেইজিংয়ের সঙ্গে যোগাযোগের খোলা লাইন রাখার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবো’। সূত্র: বিবিসি