যুক্তরাজ্যে পড়াশোনা শেষে থাকাও যাবে

230

পড়াশোনাকালীন কিংবা পড়াশোনা শেষে নানা রকম নিয়মকানুনের বাধ্যবাধকতার কারণে এতদিন যুক্তরাজ্যে উচ্চশিক্ষার্থীর সংখ্যা অনেক কমে গিয়েছিল। উচ্চশিক্ষার জন্য যারা দীর্ঘদিন আগে যুক্তরাজ্যকে বেছে নিতেন তারাও যুক্তরাজ্য থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়া শুরু করে। কিন্তু ব্রিটিশ হোম অফিসের সাম্প্রতিক এক ঘোষণার কারণে যুক্তরাজ্যে উচ্চশিক্ষার্থীর সংখ্যা এবার বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।
ব্রিটিশ হোম অফিসের নতুন প্রস্তাবনা অনুযায়ী স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পর বিদেশি শিক্ষার্থীরা কর্মসংস্থানের জন্য দুই বছর যুক্তরাজ্যে থাকতে পারবেন। ফলে ছাত্র হিসেবে যুক্তরাজ্য অর্থাৎ ব্রিটেন গিয়ে পড়াশোনা সম্পন্ন করা হয়ে গেলে আরো দুই বছর সেদেশে থাকার সুযোগ পাওয়া যাবে এবার। যেসব উচ্চশিক্ষার্থী আগামী বছর থেকে যুক্তরাজ্যে স্নাতক পর্যায়ে কিংবা তার চেয়ে উঁচু কোনো ডিগ্রির জন্য পড়াশোনা করতে যাবেন তারা এই পরিবর্তিত নিয়মের সুযোগ পাবেন। ফলে অনেক শিক্ষার্থীই এখন উচ্চশিক্ষার্থে যুক্তরাজ্যে যাওয়ার জন্য আবার আগ্রহী হয়ে উঠবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। শিক্ষাশেষে কর্মসংস্থানের জন্য যুক্তরাজ্যে থাকতে পারার সুবিধা পাওয়া ছাড়াও যুক্তরাজ্যের অনেক কলেজ-বিশ^বিদ্যালয়ে এখন রয়েছে আইইএলটিএস ছাড়াও উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ। যুক্তরাজ্যে উচ্চশিক্ষায় আগ্রহীদের অনেকেরই কীভাবে সেদেশে ভালো একটি কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবেন, পড়াশোনা ও থাকা-খাওয়ার খরচের দিক দিয়ে তার জন্য কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি বেছে নেয়া সঠিক হবে কিংবা ভিসা পাওয়ার জন্য কী কী কাগজপত্র কীভাবে জমা দিলে ভিসা পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি এ বিষয়গুলো জানা থাকে না। তাই এ ব্যাপারে অভিজ্ঞ কারো সঠিক দিকনির্দেশনা নিলে উচ্চশিক্ষার জন্য যুক্তরাজ্যে যাওয়া অনেক সহজ হবে।
উল্লেখ্য, ২০১২ সালে তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টেরিজা মে নিয়ম করেছিলেন যে স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পর বিদেশি শিক্ষার্থীরা চার মাসের বেশি ব্রিটেনে অবস্থান করতে পারবেন না। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, নতুন পরিবর্তন শিক্ষার্থীদের নিজেদের সক্ষমতা বুঝতে এবং যুক্তরাজ্যে নিজেদের পেশা গড়তে সহায়ক হবে। তিনি আরো বলেছেন, আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য তাদের সক্ষমতা চিহ্নিত করা এবং যুক্তরাজ্যে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ দিতে নতুন পথ তৈরি করা হচ্ছে।
সেরা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় : যুক্তরাজ্যের সেরা কলেজগুলোর মধ্যে উল্লেখ করা যায় বার্মিংহাম মেট্রোপলিটন কলেজ, এবে কলেজ, বেডফোর্ড কলেজ, বেলারবিস কলেজ, কলেজ অভ সেন্ট্রাল লন্ডন, লন্ডন কলেজ অভ ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড ম্যানেজমেন্ট, লীডস সিটি কলেজ, লেইস্টার কলেজ, সিটি কলেজ বার্মিংহাম, কর্নওয়াল কলেজ, ইস্ট লন্ডন কলেজ, বø্যাকবার্ন কলেজ, ব্রাডফোর্ড কলেজ, ইস্টন কলেজ, এক্সিটার কলেজ, হ্যারো কলেজ, হাল কলেজ, ইন্টারন্যাশনাল কলেজ পোর্টসমাউথ, কিংস্টন কলেজ-লন্ডন, লিংকন কলেজ, লাফবরো কলেজ, ম্যাঞ্চেস্টার কলেজ, নিউক্যাসেল কলেজ, সাউথগেট কলেজ-লন্ডন, সুইনডন কলেজ, আক্সব্রিজ কলেজ, ওয়ারউইকশায়ার কলেজ, ওয়েস্ট লন্ডন কলেজ, ইয়র্ক কলেজ ইত্যাদি।
যুক্তরাজ্যের সেরা বিশ^বিদ্যালয়গুলোর তালিকায় রয়েছে ইউনিভার্সিটি অভ অক্সফোর্ড, ইউনিভার্সিটি অভ ক্যামব্রিজ, কেসিএল (কিংস কলেজ লন্ডন), ইউনিভার্সিটি অভ ব্রিস্টল, ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডন, ইউনিভার্সিটি অভ এডিনবরা, ইউনিভার্সিটি অভ ম্যাঞ্চেস্টার, ইউসিএল (ইউনিভার্সিটি কলেজ অভ লন্ডন), ইউনিভার্সিটি অভ ওয়ারউইক, ইউনিভার্সিটি অভ এবারডিন, ইউনিভার্সিটি অভ বার্মিংহাম, বার্মিংহাম সিটি ইউনিভার্সিটি, কার্ডিফ ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অভ ডার্বি, এঙ্গলিয়া রাস্কিন ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অভ বাথ, ইউনিভার্সিটি অভ ইস্ট লন্ডন, ইউনিভার্সিটি অভ এক্সিটার, ইউনিভার্সিটি অভ গ্রীনউইচ, ম্যাঞ্চেস্টার মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অভ গøাসগো, গøাসগো কেলিডোনিয়ান ইউনিভার্সিটি ইত্যাদি।
আবেদনপত্র তৈরি করবেন যেভাবে : যুক্তরাজ্যের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য আবেদনপত্র তাড়াহুড়ো করে যেনতেনভাবে তৈরি করা এবং কোনো রকমে পাঠিয়ে দেয়া ঠিক নয়। এজন্য যথেষ্ট সময় হাতে নিয়ে, বিভিন্ন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম-কানুন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা বিবেচনা করে এবং সঠিক দিকনির্দেশনা মেনে অভিজ্ঞ কারো সহায়তা নিয়ে তবেই আবেদন করলে সফল হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।
উচ্চশিক্ষার বিষয় : যুক্তরাজ্যে যেসব বিষয়ে আপনি উচ্চশিক্ষা নিতে পারবেন সেগুলোর মধ্যে আছে মেডিসিন, কম্পিউটার সায়েন্স, এরোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং, বায়োটেকনোলজি, ডেন্টিস্ট্রি, কেমিস্ট্রি, হসপিটালিটি এন্ড টুরিজম, একাউন্টিং এন্ড ফিন্যান্স, এনিমেশন, হোটেল ম্যানেজমেন্ট, মার্কেটিং, ফার্মেসি, মিডিয়া এন্ড কমিউনিকেশন্স, ডিজিটাল মিডিয়া, নার্সিং সহ আরো অনেক বিষয়।
ইমিগ্রেশন বিষয়ক দেশের অন্যতম প্রাচীন প্রতিষ্ঠান ঐতিহ্যবাহী ‘কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন’ এ পর্যন্ত অনেক শিক্ষার্থীকে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের জন্য যুক্তরাজ্য সহ বিশ্বের বিভিন্ন উন্নত দেশে পাঠিয়েছে। কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন ও ল্যাঙ্গুয়েজ ভার্সিটি-এর চেয়ারম্যান, বিশিষ্ট ইমিগ্রেশন এক্সপার্ট কাজী মো. আবদুর রহমান স্যার বলেন, ‘যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশী উচ্চশিক্ষার্থীদের জন্য ছাত্র হিসাবে ভিসা পাওয়ার অনেক সুযোগ রয়েছে। বিশেষ কিছু যোগ্যতা থাকলে আইইএলটিএস, টোয়েফল, পিটিই ছাড়াও যুক্তরাজ্যে উচ্চশিক্ষার্থে যাওয়া যাবে।’ এমনকি এসএসসি পাশ করা ছাত্র-ছাত্রীরাও সেদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য আবেদন করতে পারবেন বলে জানান তিনি। কাজী মো. আবদুর রহমান স্যার আরো জানান, উচ্চশিক্ষার্থে যাওয়ার জন্য ফিন্যান্সিয়াল স্পন্সর রিকোয়ারমেন্ট অন্যান্য অনেক দেশের তুলনায় যুক্তরাজ্যে অনেক সহজ ও শিথিলযোগ্য। যুক্তরাজ্যসহ বিভিন্ন উন্নত দেশে উচ্চশিক্ষা নিতে আগ্রহীরা বিস্তারিত তথ্যের জন্য যোগাযোগ করতে পারেন, কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন, ভিআইপি টাওয়ার, লেভেল-১, কাজীর দেউড়ি, চট্টগ্রাম। ফোন – ০১৭২৭২৮৬১১১। ই-মেইল : শধুররসসরমৎধঃরড়হ@মসধরষ.পড়স ওয়েবসাইট : িি.িশধুররসসরমৎধঃরড়হ.পড়স.নফ ফেসবুক : িি.িভধপবনড়ড়শ.পড়স/শধুররসসরমৎধঃরড়হ

লেখক : প্রাবন্ধিক