যাদুকরি ঢোল বাঁদনে শিল্পের দ্যুতি ছড়িয়েছেন বিনয় বাঁশী

6

 

সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন সন্দীপনা কেন্দ্রীয় সংসদের সঙ্গীত, নাটক, আবৃত্তি, চারুকলা ও লোককলা বিভাগের যৌথ আয়োজনে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বাদন শিল্পি বিনয় বাঁশীর জলদাসের ১৯তম প্রয়ান উপলক্ষে এক ভার্চুয়াল সভা ৬ এপ্রিল বিকাল ৪টায় সন্দীপনার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা যদু গোপাল বৈষ্ণব’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন- সন্দীপনার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক চবি গবেষক, ভাস্কর ডিকে দাশ মামুন। সম্মানিত প্রধান অতিথি ছিলেন- চবি সিনেট সদস্য, বিশিষ্ট সমাজ বিজ্ঞানী ড. মঞ্জুর-উল-আমিন চৌধুরী। সম্মানিত আলোচকবৃন্দের মাঝে ছিলেন- সাংবাদিক বেলায়েত হোসেন, অধ্যক্ষ শেখ এ রাজ্জাক রাজু, যুব নেতা হাবিবুর রহমান হাবিব, সংগঠক উজ্জ্বল কান্তি বড়ুয়া, সমাজ ও সংস্কৃতি বিশ্লেষক দেবব্রত দে দেবু, গণমাধ্যমকর্মী মুকুল শিকদার, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী আহাম্মদ, শিক্ষাবিদ বাবুল কান্তি দাশ, সাংবাদিক তাজুল ইসলাম রাজু, ডা: ডি কে ঘোষ, অধ্যক্ষ বিজয় লক্ষী দেবী, শিল্পি এম এ হাশেম, অধ্যাপক উপনান্দ মহাথের, কবিয়াল আবদুল লতিফ, কবিয়াল সন্তোস কুমার দে, নিবেদিতা আচার্য্য, প্রণব রাজ বড়ুয়া, ফটো আর্টিস্ট দেব প্রসাদ দাশ দেবু, মো: রাকিব, সংগঠক মোশারফ হোসেন খান রুনু, সাংবাদিক হারুনুর রশিদ, মো: দেলোয়ার হোসেন প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন- বাচিক শিল্পি মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী ও নাট্যকর্মী নন্দীনি দেব। আলোচনায় বক্তারা বলেন, তটিনী কর্ণফুলী অববাহিকায় বাংলার প্রত্যন্ত জনপদ ছমদরিয়ায় একজন স্বশিক্ষিত বড় মাপের শিল্পি বিনয় বাঁশী। যাদুকরি বাঁদন শিল্পের জন্য তাঁর নামের দ্যুতি ছড়িয়েছে বাংলা পেড়িয়ে বিদেশ বিভুঁইয়ে। নিতান্ত দারিদ্র ও অর্থনৈতিক কষাঘাতে ভেতর দিয়ে শিল্পির যাপিত জীবন ছিল কুসুমাস্তীর্ন ও নান্দনিক সুষমায় ভরা। তাঁর বাঁদনভঙ্গী আর তাল-লয়ের মোহনীয় উপস্থাপনা দর্শক স্রোতাদের মোহাবিষ্ট করে রাখত। দেশে ও দেশের বাইরে একাধিকবার বিচরনকারী এই শিল্পি এই বাংলারই সুনাম ছড়িয়ে গৌরব কুড়িয়ে এনেছেন।
সমাজের প্রান্ত সীমানা হতে উঠে আসা কিংবদন্তী শিল্পিদের অনন্য একজন শিল্পি বিনয় বাঁশী। একুশে পদক কেবল তাঁকে গৌরবান্বিত করেনি। বাংলার লোক শিল্প ও লোক সাহিত্যের সুফলা ভূমিকে তিনি দিয়েছেন উর্বরতা, অপার ঐশ্বর্য। আলোচকগন শিল্পি বিনয় বাঁশীর আঙ্গিনায় গড়ে উঠা কমপ্লেক্সে সরকারী ও বেসরকারী অর্থায়নে স্থাপিত দক্ষিণ চট্টগ্রামের তাঁর প্রথম ওভার লাইভ সাইজ পূর্ণাঙ্গ প্রতিকৃতি ভাস্কর্যটি সংস্কার ও সংরক্ষণের দাবীর পাশাপাশি যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে বিনয় গবেষনা কেন্দ্র ও আর্কাইভ স্থাপনের জোর দাবী জানান।