ম্যাডিসন স্কয়ারে ফিরে এলো ৫০ বছর আগের স্মৃতি

12

পূর্বদেশ ডেস্ক
বাংলাদেশ। ১৯৭১-২০২২ পঞ্চাশ বছরের বেশি সময়ের এক অসাধারণ যাত্রা। যেখানে মিশে আছে স্মরণীয় সব অর্জন। আর এই অর্জনের সাক্ষী নিউ ইয়র্কের ছোট্ট এক স্থান- ম্যাডিসন স্কয়ার গার্ডেন। মহান একাত্তরে এই স্থানটিতেই যুদ্ধাহত বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর সমর্থনে মঞ্চে উঠেছিলেন ভুবনখ্যাত তারকা জর্জ হ্যারিসন। আর এর প্রধান উদ্যোক্তা ছিলেন ভারতের কিংবদন্তি সেতারবাদক রবি শঙ্কর।
৫০ বছর পর একই স্থানে হয়ে গেল ঐতিহাসিক ‘গোল্ডেন জুবলি বাংলাদেশ’ কনসার্ট। যার মাধ্যমে ম্যাডিসন স্কয়ারে ফিরে এলো ৫০ বছর আগের স্মৃতি। যার টাইটেল রাখা হয়, ‘লেট দ্য মিউজিক স্পিক’। তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আইসিটি বিভাগ এর আয়োজন করে। ৬ মে নিউ ইয়র্ক সময় রাত ৮ টায় (বাংলাদেশ সময় ৭ মে সকাল ৮টা) শুরু হওয়া এই কনসার্টে অংশ নেয় বিশ্ব রক গানের দিগবিজয়ী ব্যান্ড স্করপিয়নস ও বাংলাদেশের অন্যতম দল চিরকুট।
অনুষ্ঠানে চিরকুট ২০ মিনিট এবং স্করপিয়নস দেড় ঘণ্টার পরিবেশনায় অংশ নেয়। মঞ্চে এসেই চিরকুটের গায়িকা সুমি বলেন, ‘আমাদের বস স্করপিয়নস বলেছে, হ্যারিকেনের মতো পারফর্ম করতে হবে!’
এরপর শুরু করেন ‘ধনধান্যে পুষ্পে ভরা’ গানটি দিয়ে। এরপর বাংলাদেশের বিশ্ববন্ধুদের জন্য তৈরি তাদের নতুন গান পরিবেশন করে চিরকুট। দেশের জনপ্রিয় এ ব্যান্ডটি ‘দুনিয়া’সহ আরও দুটি গানে উদাযাপন করে এই স্মরণীয় মুহূর্ত। খবর বাংলা ট্রিবিউনের
অনুষ্ঠানে ব্যান্ডটির গায়িকা ও গীতিকার শারমিন সুলতানা সুমি বলেন, ‘আমি কীভাবে অনুভূতি প্রকাশ করবো, আমরা এটা করতে পেরেছি। আমরা এই ম্যাডিসন স্কয়ারে ফিরে এলাম ৫০ বছর পর। আমরা মেড ইন বাংলাদেশ’।
নিজেদের নতুন গান শুরুর আগে এই গায়িকা বলেন, ‘আমরা খুবই সৌভাগ্যবান যে সারাবিশ্বে আমাদের বন্ধুরা ছড়িয়ে আছে। আমাদের বন্ধুদের জন্য ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে একটি ট্রিবিউট সং করেছি। সেটি এখন পরিবেশন করছি’।
জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে শুরু হয় এই ঐতিহাসিক আয়োজন। এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, আইসিটি পরামর্শক সজীব ওয়াজেদ জয়, আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, সংসদ সদস্য শামীম ওসমান, নাহিদ খান, অপরাজিতা হক, কণ্ঠশিল্পী কাদেরী কিবরিয়াসহ অনেকে।
অনুষ্ঠানের শুরুতে মহান একাত্তরে বিজয় থেকে বর্তমান বাংলাদেশের ওপরে তথ্যচিত্র দেখানো হয়। তিন মিনিটের এই ভিডিওতে উঠে আসে মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের প্রথম প্রহর, মুক্তি সংগ্রাম, বাংলাদেশের মাথা তুলে দাঁড়ানো, উন্নয়ন, কৃষ্টি ও ঐতিহ্য।
এদিকে উদ্বোধনী বক্তব্যে আইসিটি মন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক স্মরণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। তিনি বলেন, ‘জজ হ্যারিসন-পন্ডিত রবিশঙ্কর আজ থেকে ৫০ বছর আগে এখানেই বাংলাদেশের শরণার্থীদের জন্য আয়োজন করেছিলেন ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’। পঞ্চাশ বছর পর আমরা একই স্থানে দেশের সুবর্ণ জয়ন্তী উদ্যাপন করছি। যখন বাংলাদেশ বিশ্বের অনুকরণীয় হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে পেরেছে। ৫০ বছর আগের মতোই এবারও এই কনসার্ট থেকে ফান্ডিং হচ্ছে। দর্শকদের থেকে টিকিট বিক্রির টাকা কন্ট্রিবিউট করা হবে গেøাবাল সাইবার সিকিউরিটি ক্যাম্পেইনে। যাতে সহযোগিতা করছে ইউএনডিপি। এখান থেকে ইউএনডিপি-বঙ্গবন্ধু নামের পুরস্কারও দেওয়া হবে’।
জানা যায়, গতকাল শনিবার সকালের এই কনসার্টে ১০ হাজার দর্শক অংশ নিয়েছিলেন।
প্রসঙ্গত, ১৯৭১ সালে নিউ ইয়র্ক সিটির ম্যাডিসন স্কয়ার গার্ডেনে আয়োজন করা হয় ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’। সাবেক বিটল্স ব্যান্ডের লিড গিটারবাদক জর্জ হ্যারিসন এবং ভারতীয় সেতারবাদক রবিশঙ্কর পুরো আয়োজনে ওঁতপ্রোতভাবে জড়িয়ে ছিলেন। এই অনুষ্ঠানে বিশ্ববিখ্যাত সংগীতশিল্পীদের এক বিশাল দল অংশ নিয়েছিলেন। যাদের মধ্যে বব ডিলান, এরিক ক্ল্যাপটন, জর্জ হ্যারিসন, বিলি প্রিস্টন, লিয়ন রাসেল, ব্যাড ফিঙ্গার এবং রিঙ্গো রকস্টার ছিলেন উল্লেখযোগ্য।