মোহাম্মদ বরকতুল্লাহ

7

বিংশ শতাব্দীর প্রথম ভাগের একজন বাংলাদেশি মুসলমান বাঙালি মননশীল সাহিত্যিক ও ধর্মতাত্ত্বিক। তিনি ছিলেন ফারসি সাহিত্য-দর্শন এবং ইসলামের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের একজন অনুরাগী পাঠক, যা তাঁর সমগ্র রচনাসংগ্রহে ফুটে ওঠে। ঘোড়াশাল গ্রাম, শাহজাদপুর, সিরাজগঞ্জে ১৮৯৮ খ্রিষ্টাব্দ ২ মার্চ জন্মগ্রহণ করেন । কবিরাজি চিকিৎসক হাজী আজম আলী তার পিতা। স্ত্রী জোবেদা খাতুন। ১৯১৪ খ্রিষ্টাব্দে শাহজাদপুর হাইস্কুল (বর্তমানে শাহজাদপুর সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়) থেকে প্রথম বিভাগে ম্যাট্রিক পাস করেন। অতঃপর রাজশাহী কলেজে ভর্তি হয়ে ১৯১৬ খ্রিষ্টাব্দে প্রথম বিভাগে আই,এ পাশ করেন। তিনি ১৯১৮ খ্রিষ্টাব্দে দর্শনে অনার্সসহ দ্বিতীয় বিভাগে বি,এ পাস করেন। কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে দর্শন শাস্ত্রে দ্বিতীয় শ্রেণিতে এমএ ডিগ্রি লাভ ১৯২০ খ্রিষ্টাব্দে। ১৯২২ খ্রিষ্টাব্দে তিনি আইনশাস্ত্রে ডিগ্রি লাভ করেন।
১৯২৩ খ্রিষ্টাব্দে বেঙ্গল সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে তিনি আয়কর কমকর্তা হিসাবে সরকারী চাকুরিতে যোগ দেন। ১৯২৪ খ্রিষ্টাব্দে ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট, ১৯৩০ ম্যাজিস্ট্রেট ও ১৯৩৬ খ্রিষ্টাব্দে সাবডিভিশনাল অফিসার পদে উন্নীত হন। ১৯৪৪ খ্রিষ্টাব্দে কলকাতায় রাইটার্স বিল্ডিংয়ে সমবায় ও ঋণ সালিশি বিভাগে সহকারী সেক্রেটারি পদে যোগদান করেন। একই পদমর্যাদায় ১৯৪৫ সালে সিভিল সাপ্লাই বিভাগে বদলি হয়েছিলেন। দেশ বিভাগের (১৯৪৭) পর ফরিদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক পদে দায়িত্ব লাভ করেন। কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক (১৯৪৮-১৯৪৯) এবং ময়মনসিংহের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (১৯৫০-১৯৫১) পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৫১ খ্রিষ্টাব্দে পূর্ব পাকিস্তান সরকারের ডেপুটি সেক্রেটারি পদে যোগদান। ১৯৫৫ সালে এ পদ থেকে অবসর গ্রহণের পর একই বছর ৩ ডিসেম্বর বাংলা একাডেমি প্রতিষ্ঠিত হলে এর বিশেষ কর্মকর্তা (পরিচালক) তথা প্রধান নির্বাহ হিসাবে দায়িত্বভার প্রাপ্ত হন। ১৯৫৭ খ্রি. পর্যন্ত এ দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ২ নভেম্বর, ১৯৭৪ ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। সূত্র: বাংলাপিডিয়া