মুম্বাইয়ের কাছে বন্যায় আটকা পড়া ট্রেনের ৭০০ যাত্রী উদ্ধার

58

প্রবল বৃষ্টির পর দেখা দেওয়া বন্যায় ভারতের মুম্বাই শহরের কাছে লোকালয়হীন একটি এলাকায় আটকে পড়া এক ট্রেনের প্রায় ৭০০ যাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে। শুক্রবার রাতভর প্রবল বর্ষণে মুম্বাই ও এর আশপাশের এলাকায় বন্যা দেখা দেয়, এ পরিস্থিতিতেই রাতে ছোট শহর ওয়াঙ্গানির কাছে মুম্বাই-কোলহাপুরের মধ্যে চলাচলকারী মহালক্ষী এক্সপ্রেস আটকা পড়ে। ট্রেনের চারপাশের বিশাল এলাকা পাঁচ থেকে ছয় ফুট পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় ট্রেন থেকে যাত্রীদের না নামার বিষয়ে সতর্ক করে কর্তৃপক্ষ।
এরপর সামরিক হেলিকপ্টার, দুর্যোগ মোকাবিলা বাহিনীর রবারের ডিঙ্গি ও উদ্ধারকারী দল পাঠিয়ে শনিবার বিকালের মধ্যে সব যাত্রীকে উদ্ধার করা হয়, জানিয়েছে বিবিসি, এনডিটিভি, আনন্দবাজার পত্রিকা। যাত্রীরা বার্তা সংস্থা আইএনএসকে জানিয়েছেন, তাদের ট্রেনের ভিতরে অপেক্ষা করতে বলার পর ১৫ ঘণ্টা যাবৎ পানি ও খাবার ছাড়া ছিলেন তারা। উদ্ধার পাওয়া যাত্রীদের মধ্যে গর্ভবতী নয় জন নারীও ছিলেন বলে জানা গেছে।
বৃষ্টি ও বন্যার কারণে যেসব যাত্রীরা বিপাকে পড়ছেন তাদের ভ্রমণের বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে ট্রেন পরিচালনাকারী কোম্পানির এক মুখপাত্র জানিয়েছেন। মুম্বাই থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার দূরের ওই এলাকার নিকটবর্তী ওয়াঙ্গানি, বদলাপুর, উল্লাসনগরের মতো ছোট ছোট শহর ভারি বর্ষণের পর তলিয়ে গেছে। স্থানীয় নদীগুলোর পানি তীর ছাপিয়ে সংলগ্ন অঞ্চলে প্রবেশ করেছে।
নিকটবর্তী স্থানে একটি অস্থায়ী শিবির স্থাপন করে বন্যার্তদের জন্য খাবার ও অষুধের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। বন্যায় মুম্বাই শহরে ট্রেনের পাশাপাশি অন্যান্য যান চলাচলও বিঘিœত হয়েছে। ১১টি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে এবং মুম্বাই বিমানবন্দরগামী কয়েকটি ফ্লাইটের পথ অন্যান্য বিমানবন্দরের দিকে ঘুরিয়ে দেওয়া হয়েছে। চলতি বর্ষাকালের কয়েক সপ্তাহের টানা বৃষ্টিতে দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলে দেখা দেওয়া বন্যায় এ পর্যন্ত ছয় শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে।