মুনিরীয়া তাবলীগ কমিটি নিষিদ্ধ ও অধ্যক্ষকে গ্রেপ্তারের দাবি

89

‘মুনির উল্লাহকে অনতিবিলম্বে গ্রেপ্তার, কাগতিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ পদ থেকে অপসারণ ও মুনিরীয়ার কার্যক্রম নিষিদ্ধ করা না হলে অচিরেই কাগতিয়া মাদ্রাসা ও কথিত কাগতিয়া দরবার ঘেরাও করা হবে। মুনিরীয়া যুব তাবলীগ কমিটি একটি উগ্রবাদী ও জঙ্গি সংগঠন। কারণ এ সংগঠনের কর্মীদের সাথে জঙ্গিদের যোগসাজশ রয়েছে। আশুলিয়া জঙ্গি হামলায় মুনিরীয়ার কর্মী র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছিল। এ থেকে প্রমাণিত হয় সংগঠনটি জঙ্গি কর্মকান্ডে তৎপর। এ সংগঠন সন্ত্রাসীদের সংগঠন, এ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা সন্ত্রাসী কার্যক্রমের সাথে জড়িত। কেউ তাদের অযৌক্তিক দাবির বিরুদ্ধে কথা বললে তাকে পেটায়, হামলা করে, রগ কেটে দেয়, ছুরি চালায়। এমনকি খুন পর্যন্ত করতে দ্বিধা করে না। এছাড়া বিভিন্ন সময় মুনিরীয়া যুব তাবলীগের সন্ত্রাসী বাহিনী ও কাগতিয়া দরবারের নামে ভন্ডামীর চিত্র জন সম্মুখে আলেম ওলামারা তুলে ধরায় তারাও হামলার শিকার হয়েছেন। হামলা ও মামলা দিয়ে তাদের বিরুদ্ধচারণকারীদের দমন করা তাদের অন্যতম কাজ’।
গতকাল শুক্রবার বিকেলে এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি’র বিরুদ্ধে কুৎসা রটানো, ১৪ বছরের কিশোর শহীদ নঈম উদ্দিনের হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারপূর্বক শাস্তির দাবি, অ্যাড. মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ারসহ নিরীহ জনতার উপর আরোপিত মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে চুয়েটস্থ চৌমুহনীতে আয়োজিত সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলে বক্তারা এসব কথা বরেন। মিছিলটি চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কের চুয়েট গেইট পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশ থেকে মুনির উল্লাহ’র আয়ের উৎস্য তদন্ত, নকল সনদে অবৈধভাবে অধ্যক্ষপদ থেকে অপসারণের দাবিতে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। দাবি আদায় না হলে কাগতিয়া মাদ্রাসা ও তাদের আস্তানা ঘেরাও করারও হুঁশিয়ারি দেন বক্তারা।
রাউজান উপজেলা ইসলামী ফ্রন্টের সভাপতি অধ্যক্ষ আল্লামা ইলিয়াছ নুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পাহাড়তলী ইউপি চেয়ারম্যান মুহাম্মদ রোকন উদ্দিন। ছাত্রসেনার নেতা আব্দুল্লাহ আল রোমান ও রবিউল হোসাইন সুমনের যৌথ সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন গাউসিয়া কমিটির কেন্দ্রিয় চেয়ারম্যান পেয়ার মুহাম্মদ কমিশনার, আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত সমন্বয় কমিটির সদস্য সচিব অ্যাড. মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ার, আল্লামা গাজী আবুল কালাম বয়ানী (মা.জি.আ), উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ারুল ইসলাম, রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ, গাউসিয়া কমিটির প্রচার সম্পাদক আহসান হাবীব চৌধুরী হাসান, ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আব্বাস উদ্দিন, লায়ন সাহাবুদ্দিন আরিফ, জসিম উদ্দিন হিরু, তসলিম উদ্দিন, মনির উদ্দিন আহম্মদ, নুর নবী,আবু বক্কর সওদাগর, মোহাম্মদ হানিফ, মাওলানা ফজল আকবর, আলী শাহ নেছারী, মাওলানা সৈয়্যদ বেলাল, দোস্ত মোহাম্মদ খান। আরো বক্তব্য রাখেন সৈয়্যদ মুহাম্মদ হোসেন, নাছির উদ্দিন মাহমুদ, অধ্যাপক সৈয়দ মুহাম্মদ জামাল উদ্দিন, মাওলানা রফিক উদ্দিন ফারুকী, অধ্যক্ষ সৈয়্যদ আবু মোস্তাক আল কাদেরী, মাওলানা আবুল কাশেম রেজভী, হাসান সওদাগর তৈয়্যবী, মুফতি জিল্লুর রহমান হাবিবী, আহম্মদ সৈয়্যদ, মাওলানা ইকবাল হোসেন আলকাদেরী, মাওলানা মাহাবুবুল আলম আল কাদেরী, মাওলানা শওকত হোসাইন রেজভী, আমান উল্লাহ আমান, সৈয়্যদ মুহাম্মদ গোলাম কিবরিয়া, এরশাদুল হক মুন্না, নজরুল ইসলাম, আবদুল শুক্কুর, আব্দুছ ছাত্তার, শামসুল আরেফিন, মোহাম্মদ রুবেল, জাহেদ বাদশা, নওশাদ হোসাইন, শিহাব উদ্দিন, হাসান ইমাম, ইমতিয়াজ রেজা, সাজ্জাদ হোসেন, আনিসুল ইসলাম, এনামুল হক মুন্না, রাশেদ আলী ইমন, কাজী কায়েস, মোহাম্মদ সোহেল, আরিফুল ইসলাম মাসুদ, মুজাম্মেল হক, আলী আকবর, মোহাম্মদ ফোরকান, মোহাম্মদ জাবেদ।