মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর পেয়ে খুশি ভূমি ও গৃহহীন পরিবার

14

হাটহাজারী

হাটহাজারী উপজেলার গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের হালদা নদীর পাড়ে জরাজীর্ণ ঘরে বসবাস করতেন হতদরিদ্র দুলাল চন্দ্র দাশ। দূরারোগ্য ব্যাধির কারণে কাজ করে পরিবার চালাতে অক্ষম ষাটোর্ধ্ব দুলাল। তারমধ্যে দুই ছেলে বিয়ে করে আলাদা হয়ে গেছে। ছোট ছেলে বিয়ে বাড়িতে ঢোল বাজায়। এতেই সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হয় বলে দুলালের স্ত্রী লক্ষী দাশ একটি বেসরকারি হাসপাতালে আয়ার কাজ করে। অবশেষে সেই দুলাল চন্দ্রের জরাজীর্ণ ঘরে বসবাসের দুঃখ ঘুচলো। মুজিববর্ষের উপহার হিসেবে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় তাদের দেয়া হয়েছে দুই শতক জমিসহ একটি আধাপাকা স্বপ্নের ঘর। যেখানে শয়নকক্ষের পাশাপাশি, থাকছে রান্নাঘর ও পয়ঃনিস্কাশনের ব্যবস্থা। এমন ঘর শুধুমাত্র দুলাল চন্দ্র জন্য নয়, উপজেলার গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নে তার মতো আরও ২৬ ভূমি ও গৃহহীন পরিবার পেয়েছে ওই রকমের আধাপাকা ঘর। গত ২০ জুন উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উক্ত ইউনিয়নের ২৬ ভূমি ও গৃহহীন পরিবারের কর্তাদের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘরের চাবি, সনদ এবং জমির দলিল ও খতিয়ান হস্তান্তর করেন জাতীয় সংসদের প্যানেল স্পিকার এবং প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি। প্রধানমন্ত্রীর উপহার দুই শতক জমিসহ একটি আধাপাকা স্বপ্নের ঘর পেয়ে গুমানমর্দ্দন উক্ত ইউনিয়নের নিলু আক্তার বলেন, আমার বিধাব মা বানু বেগম ও তিন ছেলেকে নিয়ে চট্টগ্রাম শহরে অন্যের বাসা-বাড়িতে কাজ করে খুব কষ্টে সংসার চালাচ্ছি। আগেতো আমাদের মাথা গোঁজার ঠাঁইটুকুও ছিল না। এখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারণে একটা জায়গা ও ঘরের মালিক হচ্ছি। খুব খুশি লাগছে। ভূমি ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হস্তান্তরকালে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুহুল আমিন, হাটহাজারী সার্কেল এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহাদাৎ হোসেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) শরীফ উল্লাহ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নুরুল আলম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নুরুল আলম বাসেক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলা) শামীমা আফরিন মুক্তা, হাটহাজারী থানার ওসি রফিকুল ইসলাম, উপজেলা প্রকল্প ও বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. মাইদুল ইসলাম শাহ, ফতেপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এড. মোহাম্মদ শামীম, গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান, ধলই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলমগীর জামান, উত্তর মাদার্শা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মঞ্জুর হোসের চৌধুরী মাসুদ, মেখল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন চৌধুরী, ছিপাতলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আহসান লাভু ও এমপির ব্যক্তিগত সহকারী সৈয়দ মঞ্জুর আলম।

রাঙামাটি

রাঙামাটিতে প্রধানমন্ত্রীর ঘর উপহার পাচ্ছেন আরও ৬২৩ পরিবার। তাদের মধ্যে রোববার ২০ পরিবারকে ঘরের চাবি হস্তান্তর করা হয়েছে। সকাল ১১টায় শহরের জিমনেসিয়াম হলে আনুষ্ঠানিকভাবে এসব ঘরের চাবি হস্তান্তর করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রাঙামাটির সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার। এ সময় জেলা প্রশাসক মো. মিজানুন রহমান, রাঙামাটি সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো. শহিদুজ্জামান মহসিন রোমান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাতেমা-তুজ জোহরা উপমা উপস্থিত ছিলেন। পরবর্তীতে বাকি সবাইকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর হস্তান্তর করা হবে বলে জানান, প্রশাসনিক কর্মকর্তারা। জানা যায়, গত ২০ জুন ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে সারা দেশের সঙ্গে নবনির্মিত উপহার ঘর হস্তান্তর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মুজিববর্ষে বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না প্রধানমন্ত্রীর এমন ঘোষণা বাস্তবায়নে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রমের আওতায় দ্বিতীয় পর্যায়ে এবার রাঙামাটি জেলার ৯ উপজেলায় আরও ৬২৩ পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।

চন্দনাইশ

মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রম ২য় পর্যায়ের আওতায় চন্দনাইশ উপজেলায় ভূমি ও গৃহহীন ৫১টি পরিবারকে দুই শতক জমিসহ সেমিপাকা ঘর উপহার দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত ২০ জুন চন্দনাইশ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে উপকারভোগীদের কাছে ঘরের চাবি হস্তান্তর করেন সংসদ সদস্য আলহাজ নজরুল ইসলাম চৌধুরী। ২য় পর্যায়ে সারাদেশে গৃহহীনদেরকে দেয়া ৫৩ হাজার ৩শ ৪০টি পরিবারকে জমিসহ গৃহ প্রদানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঘরের চাবি ও জমির দলিল হস্তান্তর উপলক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য আলহাজ নজরুল ইসলাম চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বার চৌধুরী, পৌর মেয়র মাহবুবুল আলম খোকা। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহফুজা জেরিন। উপজেলা ইনস্ট্রাক্টর আকতার সানজিদা জাফর পপির সঞ্চালনায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন থানা অফিসার ইনচার্জ নাসির উদ্দীন সরকার, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি, চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহেদুল ইসলাম জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক আবু আহমদ চৌধুরী, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. শাহীন হোসাইন চৌধুরী, আহসান ফারুক। এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম, উপজেলা প্রকৌশলী রেজাউন নবী, কৃষি কর্মকর্তা স্মৃতি রাণী সরকার, উপজেলা শিক্ষা অফিসার সাখাওয়াত হোসেন, মৎস কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন চৌধুরী, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আরিফ উদ্দিন, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা গীতা চৌধুরী, চেয়ারম্যান যথাক্রমে আহমদুর রহমান, নুরুল ইসলাম, আলমগীরুল ইসলাম চৌধুরী, আমিন আহমদ চৌধুরী রোকন, মোরশেদুল আলম, উপজেলা কৃষকলীগ সাধারণ সম্পাদক নবাব আলী প্রমুখ।

সাতকানিয়া

‘আশ্রয়ণের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার মুজিববর্ষে একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না’ মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণা বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে দেশের ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসনের লক্ষ্যে সারাদেশের ন্যায় সাতকানিয়া উপজেলায় সরকারি খাস জমিতে ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষের জন্য গৃহ নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। গত ২০ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকাল ১১টায় সারা বাংলাদেশে ২য় পর্যায়ের ঘর সমূহ ভার্চুয়ালি উদ্ভোদন করেন। সাতকানিয়া উপজেলায় ১ম পর্যায়ে গুচ্ছগ্রাম প্রকল্প হতে ২৫ টি, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় হতে ০৫ টিসহ মোট ৩০টি, ২য় পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় হতে ১০টি এবং ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের জন্য ০৫ টি সহ ১৫টি ঘরের কাজ সম্পন্ন করে অসহায় গৃহহীনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সহকারি কমিশনার ভ‚মি আল বশিরুল ইসলামের সঞ্চালনায় এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ঘরের চাবি হস্তান্তর করেন সাতকানিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এমএ মোতালেব সিআইপি। এসময় বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সালাহ উদ্দিন হাসান চৌধুরী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আঞ্জুমান আরা বেগম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. কামরুল হোসাইন, উপজেলা প্রকৌশলী পারভেজ সরওয়ার হোসেন, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা মৌশুমী, প্রেসক্লাব সভাপতি সৈয়দ মাহফুজ উননবী খোকন, ছদাহা ইউপি চেয়ারম্যান মোসাদ হোসাইন চৌধুরী প্রমুখ।

কাপ্তাই

কাপ্তাই উপজেলার ৫ টি ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসাবে দেওয়া ৩৫টি নতুন ঘর পেলেন কাপ্তাইয়ের ভ‚মিহীন এবং অসহায় পরিবার। গত ২০ জুন সকাল ১১টা ৪০ মিনিটের সময় কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপকারভোগী, জনপ্রতিনিধি এবং নানা শ্রেণী পেশার মানুষের উপস্থিতিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেনসের মাধ্যমে গণভবন প্রান্ত থেকে সারাদেশে যুক্ত হবার পর উপকারভোগীদের হাতে ঘরগুলোর চাবি এবং দলিল হস্তান্তর করেন কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুনতাসির জাহান। এসময় রাঙামাটি জেলা পরিষদ সদস্য অংসুই ছাইন চৌধুরী, সদস্য দিপ্তীময় তালুকদার, কাপ্তাই উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) মইনুল হোসেন চৌধুরী , কাপ্তাই থানার ওসি মো. নাসির উদ্দীন, এলজিইডি প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম চৌধুরী, কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক ইব্রাহীম খলীল, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শাহাদাত হোসেন চৌধুরীসহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, সাংবাদিক, সরকারি কর্মকর্তা এবং নানা শ্রেণি পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন। কাপ্তাই উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান জানান, সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে নির্মিত ৩০ টি ঘরের জন্য ঘরপ্রতি ব্যয় হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা এবং ৫ টি ঘরের নির্মান ব্যয় হয়েছে ঘরপ্রতি ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা। ৩৫ টি ঘরের মধ্যে রাইখালী ইউনিয়নে ১১ টি, চিৎমরম ইউনিয়নে ১৩টি, কাপ্তাই ইউনিয়নে ১টি এবং ওয়াগগা ইউনিয়নে ১০ টি ঘর পেলেন ভ‚মিহীন ও গৃহহীন পরিবার।

লংগদু

মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান ২য় পর্যায়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। গত ২০ জুন সকাল ১১ টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশে ৫৩ হাজার ৩ শত ৪০ পরিবারকে জমিসহ গৃহ প্রদানের ২য় পর্যায়ে উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর অংশ হিসেবে রাঙামাটির লংগদু উপজেলাতে ৯১টি গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহের চাবি ও সনদ প্রদান করা হয়। লংগদু উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত গৃহ প্রদান অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাইনুল আবেদীনের সভাপতিত্বে ও পরিচালনায় অতিথি ছিলেন লংগদু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও লংগদু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল বারেক সরকার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল দাশ বাবু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ারা বেগম, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা শুভাশীষ কর্মকার, লংগদু থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আরিফুল আমিন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. জোবায়ের হোসেন। লংগদু উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বরাদ্দকৃত ১শ ঘরের মধ্যে ৯১টি সমাপ্ত ঘরের সদন ও জমির কাগজ প্রধানমন্ত্রী’র উপহার হিসেবে সুফলভোগীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। নতুন ঘর ও জমি পেয়ে অত্যান্ত খুশি এসব ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারগুলো। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ ও কৃজ্ঞতা জানিয়েছেন।