‘মা’ ছোট্ট একটি শব্দ বিশাল তার পরিধি

44

 

খুব… ছোট বেলাতেই মাকে হারাই, মায়ের কোনো স্মৃতিই আমার মনে নেই! এমন কি মায়ের ‘প্রিয় মুখটি’ পর্যন্ত! মা দেখতে ছিলেন কেমন, তার দৈহিক গড়ন, চলনবলন কিছুই আমার মনে নেই। কারণ- মা যখন মারা যান তখন আমি অনেক ছোট।
খালা, মামাদের মুখে প্রায়ই শুনি ‘মা’ ভীষণ মিশুক,সদালাপী,পরিপাটি, সাংসারিক, ধার্মিক, পতিব্রতা এবং বুদ্ধিমতি ছিলেন। এক কথায় ‘সুনিপুণা’।
‘মা’ ছোট্ট একটি শব্দ; অথচ, কি বিশাল তার পরিধি….. তা আমাদের সকলেরই জানা। পৃথিবীতে সবচেয়ে মধুর বাক্য হলো এই ‘মা’, যার তুলনা একমাত্র সে নিজে’ই। যে শব্দটি শুনতেই পরম শান্তিতে মন ভরে যায়। যার দোয়াতে সকল অসাধ্য সাধন সম্ভব।
তাই হয়তো বিজ্ঞজনেরা বলেন, মাতা ও মাতৃভূমি স্বর্গের চেয়েও গরিয়সী। পৃথিবীর সকল মা-ই সন্তানের আদর্শ শিক্ষক, মায়ের কাছ হতেই আধো আধো কথা বলা শুরু হয় আমাদের। একটি সন্তানের জন্মের পর পরই শুরু হয় মায়ের অবিশ্রান্ত ব্যস্ততা। একাধারে তিনি মা, নিঃস্বার্থ সেবিকা, খেলার সাথী, আদর্শ শিক্ষক, সুখ-দুঃখের পরম বন্ধু এবং প্রতিটি সন্তানের জীবন চলার পথ আলোকবর্তিকা। আর তাই পৃথিবীতে সন্তানের কাছে সকলের চেয়ে মা-ই হচ্ছেন সবচেয়ে প্রিয় এবং আপন। যার স্নেহের পরশে মুহূর্তে দূর হয়ে যায় সকল দুঃখ-গ্লানি। ঘুচে যায় সকল হতাশার মেঘ। তাই আজও মায়ের শূন্যতা ভীষণ অনুভব করি!