মানুষ ধর্মকে বিকৃত করে, ধর্ম মানুষকে সঠিক পথ দেখায়

59

 

বাবরী মসজিদের মিনার ভাঙ্গলে যেমন মুসলমানদের লাগে, তেমনি দুর্গার প্রতিমা ভাঙ্গলেও সনাতন ধর্মাবলম্বীদের লাগে। ইসলামের কোন বিধান, কোন ধর্ম প্রচারক নবী কিংবা রাসূলকে নিয়ে কিংবা হিন্দু বা বৌদ্ধ ধর্মের কিছু নিয়ে কটাক্ষ করলেও যার যার ধর্ম অনুসারীদের অনুভ‚তিতে আঘাত লাগবেই। আবেগটা বুঝতে হবে। ধর্ম ভিন্ন হতে পারে, কিন্তু নিজ নিজ ধর্মের প্রতি আবেগটা যে মানুষের মধ্যে অভিন্ন সেটা বুঝতে হবে। এই যে এসব ভাঙ্গা-ভাঙ্গির ধর্ম তৈরি হলো, একটা ধারার প্রচলন তৈরি হলো, এই ধারার সূত্রপাত খুবই পুরাতন, এবং খুবই জঘন্য। অন্য ধর্মের প্রতি আঘাত করলে নিজের ধর্ম পালন হয়, অন্য ধর্মের প্রতি ঘৃণার বিশ্রী প্রদর্শন করলেই নিজেকে ধার্মিক বলা যায়-এই ধরনের মনোভাব তৈরি হওয়াটাই খুবই ভয়ংকর। ধর্মীয় গোড়ামি আর ধর্মের পরিপূর্ণ শিক্ষার অভাবেই এমন মনোভাব তৈরি হয়। এক ধর্মের হয়ে অন্য ধর্মকে আঘাত, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করা, কোন ধর্মেরই শিক্ষা নয়। পৃথিবীর ইতিহাসে যেসব দাঙ্গা, সংঘাত হয়েছে তারমধ্যে ধর্মীয় দাঙ্গাগুলোই সবচেয়ে বড় দাঙ্গা এবং বেশির ভাগ দাঙ্গা, যুদ্ধ বিগ্রহের মূলে কোন না কোনভাবে ধর্মই জড়িত।
যুগের আধুনিকায়নে অনেক কিছু পরিবর্তন হয়েছে। শিক্ষায় অগ্রগতি হয়েছে। মানুষের চিন্তা ভাবনায় প্রসারণ হয়েছে। ধর্মীয় গোঁড়ামির অনেক কিছুই পরিষ্কার হয়েছে। মানুষ সচেতন হয়েছে। এই যুগে এসে আমরা বুঝি, কোন হিন্দু এসে আমার মসজিদ ভাঙ্গলে যেমন সেই শিক্ষা হিন্দু ধর্মের নয়, তেমনি কোন মুসলিম এসে প্রতিমা ভাঙলেও সেই শিক্ষা ইসলামের নয়। ধর্ম ধর্মের জায়গায় সঠিক, পথভ্রষ্ট হয়েছি আমরা কিছু মানুষেরা মাত্র। পৃথিবীর যেখানেই যেভাবে এক ধর্মের লোকের দ্বারা অন্য ধর্মের প্রতি আঘাত করা হচ্ছে, অবমাননা করা হচ্ছে সবকিছু নিন্দা জানাই, কিন্তু সেই সাথে সাথে একটি বার্তা রেখে যেতে চাই, একটি ধর্মের কোন একটি ব্যক্তির কতিপয় খারাপ কাজের জন্য একমাত্র সেই ব্যক্তি বিশেষ কিংবা ব্যক্তি-গোষ্ঠি দায়ী, তার ধর্ম নয়। ধর্মে কোন খারাপ শিক্ষা নাই। ধর্মের অপব্যাখ্যা করে অবমাননা করি এই আমরাই, দোষ আমাদের, ধর্মের নয়।