মাঝিরঘাটে অবৈধভাবে ভরাট করা হচ্ছে সরকারি পুকুর

142


নগরীর মাঝিরঘাটে বাংলাদেশ জুট কর্পোরেশনের একটি পুকুর অবৈধভাবে ভরাট এবং পুকুরের পাড়ে লাগানো কয়েকশ গাছ কেটে সাবাড় করা হয়েছে। প্রভাবশালী মহল অবৈধভাবে গাছ কেটে পুকুর ভারাট করলেও নীরব দর্শকের ভূমিকায় পাটকল কর্পোরেশন। বিষয়টি সম্পর্কে জানে না পরিবেশ অধিদপ্তরও।
জানা যায়, পুকুর ভরাট করে সেখান দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করে কর্ণফূলী নদীর পাশে ঘাট বসাতে চান স্থানীয় প্রভাবশালী খলিলুর রহমান নাহিদ। নাহিদ পাট করপোরেশনের কিছু দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে রাস্তাটি করার অনুমতি নিয়েছেন বলে জানা যায়। তাঁর রাজনৈতিক দাপট থাকাল কারণে এলাকাবাসী প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছে না। রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে নাহিদ বাংলাদেশ পাট করপোরেশনের মালিকানাধীন র‌্যালি প্রেস হাউস এলাকার পুকুরটি ভরাট করছেন। এখানে রাস্তা হলে আবাসিক এলাকার লোকজনের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, পুকুর পাড়ের গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। এখন শুনছি এখানে রাস্তা হবে। আমাদের ঘরের ভিতর দিয়েই এ রাস্তা চলে যাবে। এমন হলে তো আমাদের নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়তে পারে।
জানা যায়, র‌্যালি প্রেস হাউস পুকুরটি পাট করপোরেশন থেকে লিজ নিয়েছেন সিরাজ মিয়া নামের এক ব্যবসায়ী। পুকুর পাড়ে অনেকগুলো গাছ ছিল। এছাড়া পুকুরটির চারপাশে প্রায় ২০টি পরিবারের বসবাস। কিছুদিন আগে নাহিদের লোকজন লিজ নেওয়া পুকুর পাড়ের সরকারি গাছ কেটে ফেলে। এতোগুলো গাছ কাটলেও কেউ এর প্রতিবাদ করেনি।
পুকুরের ইজারাদার মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমি পুকুরটির ইজারাদার। আমাকে কিছু না জানিয়েই নাহিদের লোকজন গাছ কেটে পুকুর ভরাট করে। আমি বিষয়টি পাট কর্পোরেশনে জানালে তারা নাহিদকে চিনে না জানিয়ে আমাকে লিখিত অভিযোগ করতে বলে। পরে আমি লিখিত অভিযোগ জানালেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ।
পুকুরটির পাশেই কর্ণফুলীর পাড় ঘেষা আনু মাঝির ঘাট। ঘাটের ইজারাদার নুরু চৌধুরী বলেন, পুকুর ভরাটসহ অবৈধভাবে সবকিছু করছে। লুটপাট চলছে এখানে। রাস্তা কেটে ফেলেছে, গাছ কেটে ফেলেছে। পরিবেশটা নষ্ট করে ফেলেছে। অনেক গাছ কাটা হয়েছে। এগুলোর বিচার কে করবে?
অভিযোগের বিষয়ে জানতে খলিলুর রহমান নাহিদের ফোনে দুইদিন চেষ্টা করা হলেও তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম মহানগর কার্যালয়ের পরিচালক মো. আজাদুর রহমান মল্লিক বলেন, গাছ কাটা আমাদের দেখার বিষয় না। পুকুর ভরাট কোন জায়গায় হচ্ছে সেটা আমাকে জানান। নির্দিষ্টভাবে না বললে আমরা খোঁজ নিতে পারি না। মাঝিরঘাট বড় জায়গা। কোন এলাকায় কোন পুকুর ভরাট হচ্ছে সেটা জানতে পারলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।