মহাকাশে দুর্ঘটনা! প্রাণে বাঁচলেন ৭ মহাকাশচারী

10

 

মহাকাশে এমন দুর্ঘটনা ঘটতে যাচ্ছিল, যার ফলে এক মুহূর্তে পুরো বিশ্ব এক দশক পিছিয়ে যেতে পারতো! বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) মহাকাশে অবস্থিত আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে একটি বড় দুর্ঘটনা ঘটেছে। যদিও এর তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি এবং কোনো ক্ষয়ক্ষতিও হয়নি। তবে দুর্ঘটনার পর মহাকাশ স্টেশনের সঙ্গে ৪৫ মিনিটের জন্য সমস্ত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। ভয়ানক ব্যাপার হলো সাত মহাকাশচারীও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। কী ঘটেছিল আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে? মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার মতে, মহাকাশে অবস্থিত আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন ৪৫ মিনিটের জন্য নিজের জায়গা থেকে সরে গিয়েছিল। এই কারণে, নাসাকে বোয়িং সিএসটি-১০০ স্টারলাইনার রকেটের উৎক্ষেপণ স্থগিত রাখতে হয়। রিপোর্ট অনুযায়ী, এটি আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে স্থাপন করার কথা ছিল।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই পুরো ঘটনাটি ঘটে যখন রাশিয়ার একটি মডিউলের থ্রাস্টার স্বয়ংক্রিয়ভাবে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে শুরু হয় এবং তারপর মহাকাশ স্টেশনটি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। রাশিয়ার এই মডিউলটি কিছুদিন আগে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে স্থাপন করা হয়েছিল। নাসার একটি রিপোর্ট অনুসারে, উৎক্ষেপণ শুরুর কিছুক্ষণ আগে ‘নওকা’ নামে রাশিয়ান ল্যাবরেটরি মডিউল কিছু প্রযুক্তিগত সম্যসার সম্মুখীন হয়েছিল, যার কারণে জেট থ্রাস্টারগুলি স্বয়ংক্রিয়ভাবে চালু হয় এবং পুরো স্পেস স্টেশনটি নিজেই তার স্থান থেকে সরে যাচ্ছিল। নাসার প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ৪৫ মিনিটের জন্য স্পেস স্টেশনটি তার জায়গা থেকে সরে গিয়েছিল এবং এই সময়ে স্পেস স্টেশনটির সঙ্গে নাসার যোগাযোগ পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। নাসার বিজ্ঞানীদের কপালে চিন্তার ভাঁজ দেখা দেয়। যদি এই স্পেস স্টেশনটি ক্ষতিগ্রস্ত হতো বা মহাকাশে হারিয়ে যেত, তাহলে সমগ্র পৃথিবী প্রযুক্তিগত সমস্যায় পড়তে পারতো। নাসা তার বিবৃতিতে বলেছে, পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে এবং রাশিয়ান স্পেস এজেন্সির সাহায্যও পাচ্ছে তারা।