ভাইকিংসের বিপক্ষে সিলেটের নাটকীয় জয়

36

সিলেট সিক্সার্সের ছুড়ে দেওয়া ১৬৯ রানের বড় লক্ষ্যটাকে দৃষ্টি সীমায় নিয়ে এসেছিলো চিটাগং ভাইকিংস। শেষ বলে প্রয়োজন ছিলো ৭টি রান। টাই হওয়ার সুযোগ থাকলেও নাটকীয় ম্যাচে ৫ রানে হেরেছে চিটাগং ভাইকিংস। আর দ্বিতীয় ম্যাচে এসে জয়ের দেখা পেলো ডেভিড ওয়ার্নারের সিলেট।
ডেলপোর্টের ৩৮, আশরাফুলের ধীর গতির ২২ রানের পর সিকান্দার রাজাই ম্যাচটাকে নিয়ে যাচ্ছিলেন জয়ের কাছে। রাজা ২৮ বলে ৩৭ রান করে বিদায় নিলে আপাতদৃষ্টিতে জয়ের সম্ভাবনা মিইয়ে গেলেও ২৪ বলে অপরাজিত ৪৪ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে ম্যাচটাকে দৃষ্টি সীমায় আনেন রোবি ফ্রাইলিঙ্ক। তার ঝড়ো ব্যাটিংয়েই ১২ বলে ৩৮ রান থেকে শেষ বলে চিটাগংয়ের প্রয়োজন ছিলো ৭ রান। ফ্রাইলিঙ্ক অবশ্য আল আমিনের শেষ বলটাতে ঠিকমতো সংযোগ ঘটাতে পারেননি। তাতে ৫ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সিলেট। আগের ম্যাচে জয় পাওয়া চিটাগং থামে ৭ উইকেটে ১৬৩ রান তুলে। অধিনায়ক মুশফিক ৫ রানে ফিরে যান সাজঘরে। তাসকিন ২৮ রানে ৪ উইকেট নেন সিলেটের হয়ে। দুটি নেন অলোক কাপালি।
এর আগে দ্বিতীয় ম্যাচে খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসেন সিলেটের অস্ট্রেলীয় ওপেনার। তার এবং নিকোলাস পুরানের ঝড়ো ফিফটিতে চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে ১৬৯ রানের বড় লক্ষ্য পায় সিলেট। ৫ উইকেটে তারা করে ১৬৮ রান।
মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিং নেওয়া সিলেটের ওয়ার্নার ৪৭ বলে ৫৯ রান করে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠলে তাকে বিদায় দেন ফ্রাইলিঙ্ক। তবে শেষ দিকের আগ্রাসন ধরে রাখেন পুরান। ৩০ বল খেলে ৩ চার ও ৩ ছক্কায় করেন হাফসেঞ্চুরি। শেষ দিকে তার ব্যাটে ভর করে ৫ উইকেটে ১৬৮ রান করে সিলেট। পুরান অপরাজিত থাকেন ৫২ রানে আর দুই রানে ক্রিজে ছিলেন অলোক কাপালি।
চিটাগংয়ের পক্ষে ২৬ রানে ৩ উইকেট নিয়ে সেরা বোলার ছিলেন রোবি ফ্রাইলিঙ্ক। ম্যাচসেরা সিলেটের নিকোলাস পুরান।