বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস ২০২০ এবং কিছু কথা

11

প্রফেসর ডা. এস. এম. মোস্তফা কামাল

উচ্চ রক্তচাপ একটি নীরব ঘাতক ব্যাধি। বর্তমানে উচ্চ রক্তচাপ মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়ছে। সারা বিশ্বে প্রায় ১১৩ কোটি মানুষ উচ্চ রক্তচাপে ভোগে যার দুই তৃতীয়াংশ বাস করে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশে। প্রতি চারজনে একজন পুরুষ এবং প্রতি পাঁচজনের একজন মহিলা উচ্চ রক্তচাপে ভোগে। জনগণকে উচ্চ রক্তচাপ সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য জানানো, প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ, রোগের চিকিৎসাও জটিলতা সম্পর্কে অবহিত করা এবং সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিশ্ব হাইপারটেনশন লীগ ২০০৫ সাল থেকে প্রতিবছর ১৭ই মে বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস পালন করে আসছে। চলতি বছরে বৈশ্বিক করোনা মহামারীর কারণে ১৭মে এর পরিবর্তে বিশ্ব হাইপারটেনশন লীগ এবং বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক হাইপারটেনশন সোসাইটি ১৭ই অক্টোবর ২০২০ বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস পালন করছে। বিশ্ব হার্ট দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হল “গবধংঁৎব ুড়ঁৎ ইষড়ড়ফ ঢ়ৎবংংঁৎব, পড়হঃৎড়ষ রঃ, ষরাব ষড়হম” বাংলায় বলা চলে ‘রক্তচাপ জানুন, নিয়ন্ত্রণে রাখুন ও সুস্থ জীবন উপভোগ করুন’। উচ্চ রক্তচাপের কারণে মারাত্মক হার্ট এ্যাটাক, স্ট্রোক, কিডনী ফেইলর, অন্ধ হয়ে যাওয়া এব শারীরিক অক্ষমতায় ভোগে। কিছু উপদেশ মানা, নিয়ন্ত্রিত জীবনযাত্রা পালন ও চিকিৎসার মাধ্যমে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ২০২৫ সালের মধ্যে উচ্চ রক্তচাপ শতকরা ২৫ ভাগ কমানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছেন।
সাধারণ ভাবে কারো রক্তচাপ ১৪০/৯০ মি.মি অব মার্কারী বা তদুর্ধে হলে আমরা তাকে উচ্চ রক্তচাপ বলি। রক্তচাপ কিভাবে মাপবেন?
১. রক্তচাপ পরিমাপের পূর্বে পাঁচ মিনিট বিশ্রাম নিন। ২. চা, কফি বা ধুমপান করার পর আধঘণ্টা অপেক্ষা করুন। ৩. ভরা পেটে থাকলে দুই ঘণ্টা অপেক্ষা করুন। ৪. পায়খানা বা প্রস্রাবের বেগ থাকলে রক্তচাপ মাপার পূর্বে সেরে ফেলুন। ৫. এমন চেয়ারে বসুন যাতে হেলান দেওয়া যায় এবং বাহু রাখার জন্য সাইড হাতল থাকে। ৬. পা মেঝেতে সমান্তরাল ভাবে রাখুন। ৭. অনাবৃত বাহুতে সঠিক সাইজের রক্তচাপ মেশিনের বাহু বন্ধনীটি বাহুর মধ্যখানে এমনভাবে জড়ান, যাতে ইহা বাহুর তিন ভাগের দুইভাগ আবৃত করে এবং বাহুটি হার্টের লেবেলে থাকে।
আজকাল রক্তচাপ পরিমাপের জন্য অনেক ধরনের মেশিন পাওয়া যায়। আমাদের দেশের পরিবেশে ম্যানুয়াল (গবৎপঁৎু/অহবৎড়রফ) মেশিন অধিক উপযোগী। বিদেশে অটোমেটিক মেশিন সমান ফলদায়ক হলেও আমাদের দেশে অটোমেটিক মেশিন সঠিক নিয়মে ব্যবহারের পদ্ধতি না জানার জন্য ভুল রেকডিং আসে। এই ব্যাপারে সতর্ক থাকা প্রয়োজন।
আপনার উচ্চ রক্তচাপ আছে কিনা সেটা জানার জন্য একমাত্র উপায় রক্তচাপ পরিমাপ করা। এই ব্যাপারে চিকিৎসক অথবা অভিজ্ঞ স্বাস্থ্যকর্মীর পরামর্শ নেওয়া যেতে পারে। বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে উচ্চ রক্তচাপের রোগীর কোন উপসর্গ থাকে না। তবে কিছু লোকের মাথা ব্যথা বা মাথায় ঝিম ঝিম করা, চোখে ঝাপসা দেখা বা বুকে অস্বস্থি বোধ হয়। এছাড়াও উচ্চ রক্তচাপের জটিলতা নিয়েও অনেকে চিকিৎসকের শরনাপন্ন হন। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের উপদেশাবলী-
১। স্বাস্থ্য সম্মত খাদ্য নির্বাচন করুন। লবণাক্ত খাবার, প্যাকেট জাত খাবার, মিষ্টি বা অধিক শর্করা জাতীয় খাবার, ফ্রোজেন পিজা, লাল মাংস, ট্রান্সফ্যাট ইত্যাদি পরিহার করুন। ২। নিয়মিত ব্যায়াম করুন। সপ্তাহে অন্তত: পাঁচ দিন ৩০ মিনিট হাঁটাহাঁটি, বাগানে কাজ করা, সাইকেল চালানো, জগিং, সাঁতার কাটা রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। ৩। ধুমপান বন্ধ করুন। ৪। সঠিক সময়ে নিয়মিত ওষুধ খাবেন। ৫। ওষুধ গ্রহণ করার পরও নিয়মিত রক্তচাপ মাপুন। ৬। রক্তচাপ বেড়ে গেলে অযথা আতংকিত হবেন না। চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলুন। নিজে কোন ঔষধ খাবেন না কিংবা ঔষধের মাত্রা কম বেশি করবেন না। ৭। যে কোন ধরনের ঔষধের পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া বা রোগের জটিলতা দেখা দিলে আপনার চিকিৎসককে জানান। তাই পুর্নবার বলি-
‘রক্তচাপ মাপুন, নিয়ন্ত্রণে রাখুন এবং বেশী দিন বাঁচুন’
লেখক: সাধারণ সম্পাদক
ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন, চট্টগ্রাম