বিভাগীয় শহরগুলোতে ব্যুরো অফিস খুলছে আইএসপিআর

45

প্রতিষ্ঠার ৪৭তম বছরে এসে সংস্থার কার্যক্রমকে বিস্তৃত করার উদ্যোগ নিয়েছে আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর)। এ লক্ষ্যে চট্টগ্রামসহ দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতে ব্যুরো অফিস খুলছে সশস্ত্র বাহিনী এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন অন্যান্য দপ্তর বা সংস্থার প্রচার ও জনসংযোগ কাজ পরিচালনার দায়িত্বে নিয়োজিত একমাত্র সংস্থাটি। এর মধ্য দিয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে আইএসপিআরের তথ্যের আদান-প্রদান সহজতর হওয়ার পাশাপাশি গণমাধ্যমে বস্তুনিষ্ঠ তথ্য সরবরাহ এবং প্রচার নিশ্চিত হবে বলে আশা প্রকাশ করা হয়েছে।
নগরীর প্রেসক্লাবের এফ রহমান হলে গতকাল রবিবার বেলা এগারটায় আইএসপিআরের পক্ষ থেকে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় সংস্থার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবদুল্লাহ ইবনে জায়েদ এ উদ্যোগের কথা জানান। এ সময় তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেয়ার পাশাপাশি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জিটুআই মেজর আবু সাঈদ গোলাম মওলা, আইএসপিআরের সহকারী পরিচালক মো. নূর ইসলাম ও সাইদা তাপসী রাবেয়া লোপা, প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস, সিনিয়র সহ-সভাপতি সালাহউদ্দিন মো. রেজা, সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, সিইউজে সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
আইএসপিআর পরিচালক বলেন, আইএসপিআর সশস্ত্র বাহিনীর মুখপত্র হিসেবে কাজ করে। মিডিয়া নিয়ন্ত্রণের কোনও আইনি অধিকার আইএসপিআরকে কেউ দেয়নি। এটা পরিদপ্তরের কাজও নয়। আইএসপিআরের কার্যক্রম সম্পর্কে নিজস্ব ওয়েবসাইটেই এক নজরে ধারণা দেয়া আছে। বিধিবদ্ধ সংস্থা হিসেবে আইএসপিআর দায়িত্বপ্রাপ্ত সেসব কাজই করে।
তিনি বলেন, সশস্ত্র বাহিনী যেমন দেশের জন্য কাজ করে তেমনি সাংবাদিকরাও। সাংবাদিকদের কথা বা পরিবেশিত সংবাদ মানুষ বিশ্বাস করে। তাই সবাইকে বুঝতে হবে কোন সংবাদ দেশের জন্য মঙ্গলজনক কিংবা ক্ষতিকর। দেশের প্রতি দায়িত্ববোধ থেকেই সেন্সরশিপ নিজেদেরই করতে হবে। অসত্য সংবাদ বা গুজব জনমনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। আইএসপিআর চেষ্টা করবে সাংবাদিকদের দ্রæততম সময়ে বস্তুনিষ্ঠ ও সঠিক তথ্য দিয়ে সবসময় সহযোগিতা করার। সশস্ত্র বাহিনীর খবর কিংবা ভিডিও ফুটেজ যতটা সম্ভব দ্রæত সময়ের মধ্যে গণমাধ্যমে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে।
আইএসপিআর পরিচালক বলেন, গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে পারস্পরিক যোগাযোগ এবং তথ্যের আদান-প্রদান আরও সহজতর করতে চট্টগ্রামসহ বিভাগীয় শহরগুলোতে আইএসপিআরের ব্যুরো অফিস খোলার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর চট্টগ্রামে সেনানিবাসের বাইরেই ব্যুরো অফিস খোলা হবে। এর মধ্য দিয়ে মিডিয়া বা গণমাধ্যমকর্মীরা দেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট খবরগুলো সহজে যাচাই ও নিশ্চিত হতে পারবেন।
বিভ্রান্তি বা গুজব এড়াতে সঠিক সময়ে সঠিক তথ্য প্রাপ্তি নিশ্চিত করা জরুরি বলে মত প্রকাশ করেন সাংবাদিকরা। তাতে সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রচার বা প্রকাশ সহজ হয়। আইএসপিআর এ বিষয়ে লক্ষ্য রাখবে এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে বলে সাংবাদিকরা আশা প্রকাশ করেন।