বাড়াবাড়ি বেশি করলে মানুষও তাড়াতাড়ি সিদ্ধান্ত নেবে

43

নিজস্ব প্রতিবেদক

‘বাড়াবাড়ি বেশি করলে দেশের মানুষও তাড়াতাড়ি তাদের সিদ্ধান্ত নিয়ে নেবে’, এমন মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, পুলিশি তৎপরতা, গ্রেপ্তার, খুন, মিথ্যা মামলা, গায়েবি মামলা, গুম, নির্যাতন করে বাংলাদেশের মানুষের আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না। যত বেশি হামলা হবে, যত বেশি গ্রেপ্তার করা হবে, তত বেশি আন্দোলন জোরদার হবে। বেশি হামলা করলে, বেশি মামলা করলে বেশি মানুষ রাস্তায় নেমে আসবে। বাড়াবাড়ি বেশি করলে দেশের মানুষও তাড়াতাড়ি তাদের সিদ্ধান্ত নিয়ে নেবে। ইতোমধ্যে দেশের মানুষ পরিষ্কার বার্তা দিয়েছে- এই অবৈধ, দখলদার, ফ্যাসিস্ট সরকার বিদায় হও।
গতকাল মঙ্গলবার বিকালে নগরীর সাগরিকা মোড়ে বিএনপির পদযাত্রা কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর নেতৃত্বে নগরীর সাগরিকা মোড় থেকে পদযাত্রা শুরু করে পোর্ট কানেক্টিং রোড়-সরাইপাড়া মোড় হয়ে নয়াবাজারে গিয়ে শেষ হয়।
আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, নেতাকর্মীদের প্রস্তুত হতে হবে। আপনারা সবাই প্রস্তুত হন। শেষ পর্যন্ত থাকতে হবে, শেষপর্যন্ত লড়তে হবে। আমরা প্রয়োজনে প্রতিরোধ করব। জীবন দিয়ে হলেও এদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করব, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করব। জীবন দিয়ে হলেও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করব। দুর্নীতিবাজদের এদেশ থেকে বিতাড়িত করব।
তিনি বলেন, তারেক রহমানের সিদ্ধান্ত ফয়সালা হবে রাজপথে। রাজপথ ছাড়া দ্বিতীয় কোনো পথ নেই। রাজপথে জনগণকে নিয়ে এ ফ্যাসিস্ট সরকারকে হটাতে হবে। বিএনপির কর্মসূচিতে মানুষের জোয়ার দেখে আওয়ামী লীগ আজ অসহায় হয়ে গেছে। পুলিশের পিছে পিছে ঘুরছে। আর ছুরি, লাঠি, দা নিয়ে তারা শান্তি সমাবেশ করছে। ওরা নাকি জনগণের সম্পদ রক্ষা করবে।
তিনি বলেন, আজকের পদযাত্রা থেকে মানুষ সরকারকে বার্তা দিয়েছে, শেখ হাসিনা বিদায় হও। বাংলাদেশের মানুষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে- শেখ হাসিনা বিদায় হও। আওয়ামী লীগ রাজনৈতিকভাবে পরাজিত হয়েছে। এই বার্তা যদি ফ্যাসিস্ট, দখলদার, অবৈধ সরকার বুঝতে না পারে, তাহলে তাদের জন্য আরও বড় দুঃসংবাদ অপেক্ষা করছে। তারা রাজনৈতিকভাবে পরাজিত হয়ে কবরে চলে গেছে। নতুন করে তাদের আর কবরে নেয়ার দরকার নেই। রাজনৈতিকভাবে আওয়ামী লীগ কবরে সমাহিত হয়ে গেছে।
চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্করের সভাপতিত্বে ও মহানগর যুবদলের সভাপতি মোশাররফ হোসেন দিপ্তী এবং আহব্বায়ক কমিটির সদস্য মন্জুর আলম চৌধুরী মন্জুর পরিচালনায় পদযাত্রা শুরুর আগে সমাবেশে প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় বিএনপির শ্রম সম্পাদক এ এম নাজিম উদ্দীন ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক আবু সুফিয়ান।
মাহবুবের রহমান শামীম বলেন, বিএনপির পদযাত্রা কর্মসূচিতে এই ফ্যাসিস্ট সরকারের পতনের লক্ষ্যে সাধারণ মানুষ রাস্তায় নেমেছে। আজকের এই পদযাত্রা কর্মসূচি প্রমাণ করেছে তারা শেখ হাসিনাকে আর চায় না।
এ এম নাজিম উদ্দীন বলেন, পদযাত্রা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে চট্টগ্রামবাসী প্রমাণ করেছে তারা শেখ হাসিনাকে আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। আন্দোলনের মাধ্যমেই তত্ত¡াবধায়ক সরকারের দাবি আদায় করবো।
সভাপতির বক্তব্যে আবুল হাশেম বক্কর বলেন, কাউন্টার প্রোগ্রামের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের আসল চেহারা উন্মোচিত হয়েছে। হাসিনার সরকারের আমলে মানুষের ভোটের অধিকার ধ্বংস করা হয়েছে। তারা সরকারে আসার পর একটি পুতুল নির্বাচন কমিশন করে দিনের ভোট রাতে নিয়েছে। বিচার বিভাগকে ধ্বংস করেছে। প্রশাসনকে ধ্বংস করেছে।
আবু সুফিয়ান বলেন, আজকের এই পদযাত্রা কর্মসূচি থেকে সরকারের পতনের ঘন্টা বেজে গেছে। কোন ধরনের ভয়ভীতি দেখিয়ে আন্দোলনকে দমানো যাবে না। দমানোর চেষ্টা করলে এর ফল ভাল হবে না। আমরা রাজপথে আছি, থাকবো। শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে মানুষের অধিকার আদায় করবো।
কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহব্বায়ক মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, এড. আবদুস সাত্তার, এস এম সাইফুল আলম, এস কে খোদা তোতন, নাজিমুর রহমান, শফিকুর রহমান স্বপন, কাজী বেলাল উদ্দিন, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, মো. শাহ আলম, আবদুল মান্নান, মহানগর বিএনপির আহব্বায়ক কমিটির সদস্য হারুন জামান, এড মুফিজুল হক ভূঁইয়া, এস এম আবুল ফয়েজ, আহমেদুল আলম চৌধুরী রাসেল, জাহাঙ্গীর আলম দুলাল, আবুল হাশেম, আনোয়ার হোসেন লিপু, মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহেদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচ এম রাশেদ খান, মহিলা দলের সভাপতি মনোয়ারা বেগম মনি, সাধারণ সম্পাদক জেলী চৌধুরী, বিভাগীয় শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক নুরুল্লাহ বাহার, যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাইফুর রহমান শপথ, শ্রমিক দলের সভাপতি তাহের আহম্মেদ, কৃষক দলের আহব্বায়ক মো. আলমগীর, সদস্য সচিব কামাল পাশা নিজামী, তাঁতীদলের সদস্য সচিব মনিরুজ্জামান মুরাদ, জাসাসের আহব্বায়ক মুছা বাবলু, সদস্য সচিব মামুনুর রশীদ শিপন, ছাত্রদলের আহব্বায়ক সাইফুল আলম, সদস্য সচিব শরিফুল ইসলাম তুহিন প্রমুখ।