বাচ্চুর স্ত্রীর নগদ বেড়েছে, জমা কমেছে ব্যাংকে

32

চট্টগ্রাম-১০ (ডবলমুরিং-পাহাড়তলী) আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মহিউদ্দিন বাচ্চু চার মাস আগে উপ-নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিল। দ্বিতীয়বারের মতো আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছেন পেশায় ব্যবসায়ী এই নেতা। চার মাস আগে জমা দেয়া হলফনামায় বাচ্চুর স্ত্রীর নগদ টাকা না থাকলেও এবার সেটি বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাত লক্ষ তিন হাজার ৫০০ টাকা। একইভাবে চার মাস আগে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে বাচ্চুর স্ত্রীর নামে ব্যাংকে জমা দেখানো হয়েছিল ৬ লাখ ৪৫ হাজার টাকা। এবার স্ত্রীর ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে টাকা নেই।
আওয়ামী লীগ প্রার্থী মহিউদ্দিন বাচ্চুর হলফনামা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, আওয়ামী লীগ প্রার্থী মহিউদ্দিন বাচ্চু পেশায় ব্যবসায়ী। শিক্ষাগত যোগ্যতা স্বশিক্ষিত এই প্রার্থীর বিরুদ্ধে নেই কোন মামলা। ব্যবসায়ী মহিউদ্দিন বাচ্চুর ব্যবসা খাতে বাৎসরিক আয় ১৭ লক্ষ ৯৪ হাজার ৫০০ টাকা। চার মাস আগে একই নির্বাচনে জমা দেয়া হলফনামায় আয় ছিল ১৭ লাখ ৪৩ হাজার ৫২৫ টাকা। সেসময় নির্ভরশীলদের উপর চার লাখ ৫৫ হাজার টাকা আয় থাকলেও এবার আয় নেই।
অস্থাবর সম্পদের মধ্যে বাচ্চুর নগদ টাকা আছে ১১ লক্ষ তিন হাজার ৪৮৪ টাকা, স্ত্রীর নামে সাত লক্ষ তিন হাজার ৫০০ টাকা আছে। চার মাস আগে নিজ নামে নগদ টাকা দেখিয়েছিলেন ৬ লাখ ৬৬ হাজার ২৪৫ টাকা। সেসময় স্ত্রীর নামে নগদ টাকা ছিল না। চার মাস আগে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে বাচ্চুর স্ত্রীর নামে ব্যাংকে জমা দেখানো হয়েছিল ৬ লাখ ৪৫ হাজার টাকা। এবার স্ত্রীর ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে টাকা নেই। চার মাস আগে বন্ড, ঋণপত্র, স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয় এমন পৃথক পাঁচটি কোম্পানিতে মহিউদ্দিন বাচ্চু ও স্ত্রীর নামে শেয়ারে বিনিয়োগ রয়েছে এক কোটি আট লাখ টাকা। এবারও একই অংকের শেয়ার মূল্য আছে বাচ্চু ও তাঁর স্ত্রী। বর্তমানে তার দুইটি গাড়ি বাবদ সম্পদ দেখানো হয়েছে ৯০ লাখ টাকা। স্ত্রীর নামে ৩৫ হাজার টাকার মূল্যের স্বর্ণাংলকার দেখানো হয়েছে। ৩০ হাজার টাকার টিভি, ফ্রিজ ও অন্যান্য সামগ্রী ছাড়াও মহিউদ্দিন বাচ্চুর নামে ৬০ হাজার টাকা ও স্ত্রীর নামে এক লাখ টাকার আসবাবপত্র দেখানো হয়েছে।
হলফনামায় স্থাবর সম্পদের মধ্যে মহিউদ্দিন বাচ্চুর নিজের নামে তিন কোটি ৫০ লাখ ৬১ হাজার ৫০০ টাকার অকৃষি জমি রয়েছে। স্ত্রীর নামে রয়েছে ২৫ লাখ ২০ হাজার টাকার ফø্যাট।