বাচার পরিবার পেল বাঁচার অবলম্বন

29

চন্দনাইশ প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম নগরীর পলোগ্রাউন্ড মাঠে গত ৪ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় যোগ দিতে যাওয়ার পথে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করা চন্দনাইশ হাশিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা জহিরুল ইসলাম বাচার স্ত্রী বানু আকতারের হাতে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন এমপি’র পক্ষ থেকে দেয়া নগদ ৫ লক্ষ টাকা দেয়া হয়েছে। এ টাকা জহিরুলের পরিবারকে তুলে দিয়েছেন নজরুল ইসলাম চৌধুরী এমপি।
গত ৪ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের মহাসমাবেশের উদ্দেশে চট্টগ্রামে পৌঁছার পর সদরঘাট এলাকায় বেলা ১১ টায় গেঞ্জি বিতরণের সময় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে চমেক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন বাচা। বাচা চন্দনাইশ উপজেলার ৮ নম্বর উত্তর হাশিমপুর ইউনিয়নের মৃত দুলা মিয়ার ছেলে। নিবেদিত প্রাণ ও সংগঠনপ্রিয় মানুষটি জীবনযাপন করছিলেন দীনহীন বেশে। কষ্টে ছিলেন পরিবার-পরিজন নিয়ে। টাকা পাওয়ার পর পরিবারের সদস্যদের দেখে মনে হলো বাচার পরিবার যেন বাঁচার অবলম্বন পেয়েছে।
তার বিষয়ে বিস্তারিত জেনে হাশিমপুর আওয়ামী লীগ নেতা বাচার পরিবারের জন্য আর্থিক সহায়তা হিসেবে নগদ ৫ লক্ষ টাকা প্রদান করেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন এমপি।
গতকাল সোমবার দুপুরে ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন এমপি’র পক্ষে চট্টগ্রাম-১৪ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম চৌধুরী এ অর্থ তার স্ত্রী বানু আকতারের হাতে তুলে দেন।
এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম উদ্দিন আহমেদ এমপি, সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের ব্যক্তিগত সহকারী ও উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক নুর খান, উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মো. গিয়াস উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক আবু আহমদ চৌধুরী জুনু, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য যথাক্রমে, সেলিম উদ্দিন, বখতেয়ার সাঈদ ইরান, আকতার মাহমুদ পারভেজ, চন্দনাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন, চেয়ারম্যান খোরশেদ বিন ইসহাক, আওয়ামী লীগ নেতা যথাক্রমে নবাব আলী, জহির উদ্দিন হিরু প্রমুখ।
নজরুল ইসলাম চৌধুরী প্রয়াত বাচার পরিবারকে আশ্বাস দিয়ে বলেছেন, তিনি পরিবারটির জন্য একটি ঘর নির্মাণ করে দেয়ার পাশাপাশি ছেলে-মেয়েদের লেখা-পড়াসহ যাবতীয় খরচের ব্যবস্থা করে দিবেন। ছেলে-মেয়েদের লেখা-পড়া কোনো অবস্থাতেই বন্ধ করা যাবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে এ বিষয়ে কথা বলে আর্থিক অনুদানের ব্যবস্থা করবেন বলে জানান তিনি।