বাংলাদেশের হারের যত কারণ …

35

সাকিব যখন আউট হলেন, প্রায় সকলেই ধরে নিয়েছিলেন বড় ব্যবধানে হারতে চলেছে বাংলাদেশ। কিন্তু হাল ছাড়েননি সাইফউদ্দিনরা। শেষ রক্ষা না হলেও তাঁদের মরিয়া লড়াই মনে রাখবে ক্রিকেট বিশ্ব। কিন্তু ঠিক কোথায় পিছিয়ে পড়ল বাংলাদেশ? দেখে নেওয়া যাক টাইগারদের হারের কারণ।
টস: টস ভাগ্য বাংলাদেশের বিপর্যয়ের অন্যতম কারণ।স্লো পিচে টস জিতলে ব্যাটিং নিশ্চয়ই করতেন মাশরফি। তাতে রান তাড়া করতে মুশকিলে পড়তই ভারত।
রোহিতের ক্যাচ মিস: রোহিতের ক্যাচ ফস্কানোর বিরাট মূল্য দিতে হয়েছে বাংলাদেশকে। ৯ রানে জীবন ফিরে পাওয়া রোহিত করেন ১০৪ রান।
শুরুর ধাক্কা দিতে না পারা: শুরুতে উইকেট নিতে পারেনি বাংলাদেশ। দুই ওপেনার রোহিত এবং রাহুলই ভারতকে বড় সংগ্রহ এনে দেন। শুরুতে উইকেট নিতে পারলে ভারতের রান হয়তো আরো কম হতো।
বোলিং: সাকিব আর মুস্তাফিজ ছাড়া কেউ ভাল বল করতে পারেননি। এই পিচে কীভাবে বল করা উচিত তা দেখিয়ে দেন দুই চ্যাম্পিয়ন।
মিরাজকে একাদশে না রাখা: মেহদীকে না নিয়ে কি ভুল করে ফেলেন নির্বাচকরা? সাকিবের স্পিনে হাঁসফাঁস করা ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা মিরাজের ঘূর্ণিতে বিপর্যস্ত হতে পারতেন!
রিয়াদের চোট: মাহমুদুল্লাহর চোট বড় ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়ায়। মোসাদ্দেকের বদলে মাহমুদুল্লাহ থাকলে ম্যাচের ফল অন্যরকম হতে পারত।
বড় পার্টনারশিপ না করতে পারা: বড় রান তাড়া করার ক্ষেত্রে প্রধান ভ‚মিকা নেয় পার্টনারশিপ। বাংলাদেশ সেই বড় পার্টনারশিপ গড়তে পারেনি। সর্বোচ্চ পার্টনারশিপ সাব্বির-সইফউদ্দিনের ৬৬ রানের।
সাইউদ্দিনকে সঙ্গ দিতে না পারা: মাশরফির ব্যাট হাতে আরেকটু পরিণত ভ‚মিকা নেওয়া উচিত ছিল। সাইফউদ্দিন যেখানে এত ভাল খেলছিলেন, সেখানে তাঁকে স্ট্রাইক না দিয়ে ঠিক করেননি বাংলাদেশ ক্যাপ্টেন।
ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে মঙ্গলবার ভারতের বিপক্ষে ২৮ রানে হেরে লিগ পর্ব থেকেই বিদায় নিয়েছে বাংলাদেশ। তবে, টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের এখনো একটি ম্যাচ বাকি আছে। আগামী ৫ জুলাই পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে টাইগাররা।