বন্যার পানি কমছে, কিছু এলাকায় নতুন শঙ্কা

10

পূর্বদেশ ডেস্ক

কমতে শুরু করেছে প্রায় সব নদীর পানি। ভারী বৃষ্টিও নেই কোনও অঞ্চলে। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় ভারতের হিমালয় পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গে (জলপাইগুড়ি, সিকিম) মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে। এই ৪৮ ঘণ্টায় তিস্তার পানি বিপৎসীমার কাছাকাছি অবস্থান করতে পারে। এছাড়া আগামী ২৪ ঘণ্টায় সিলেট, সুনামগঞ্জসহ দেশের বেশিরভাগ অঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি অব্যাহত থাকতে পারে। তবে শরীয়তপুর ও মাদারীপুর জেলার কিছু এলাকা নতুন করে প্লাবিত হতে পারে। খবর বাংলা ট্রিবিউনের
এদিকে গত শনিবার দেশের ৭ নদীর ১০ পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ওপরে আছে। গত বৃহস্পতিবার ১০ নদীর ১৯ পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ওপরে ছিল। সেই হিসাবে প্রায় সব এলাকার পানি কমতে শুরু করেছে। আবহাওয়া সংস্থাগুলোর গাণিতিক মডেলভিত্তিক পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী ৪৮ ঘণ্টায় তিস্তা অববাহিকা ছাড়া দেশের অভ্যন্তরে এবং উজানের বিভিন্ন অংশে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা কম। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র, যমুনা, গঙ্গা পদ্মা, ধরলা, দুধকুমার এবং দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সকল প্রধান নদ-নদীর পানি কমা অব্যাহত থাকতে পারে।
আগামী ২৪ ঘণ্টায় কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল ও জামালপুর জেলার নিম্নাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে। বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানায়, যমুনার সব পয়েন্টে এবং ধরলা, ঘাঘট, আত্রাই নদীর পানি এখন বিপৎসীমার নিচে নেমে গেছে। আজ শুধু হাতিয়া পয়েন্টে পানি ১৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে।
এদিকে বাউলাই নদীর পানি বৃহস্পতিবার বিপৎসীমার নিচে নামলেও আজ তা আবার ওপরে উঠেছে। আজ এই নদীর খালিয়াজুড়ি পয়েন্টে পানি ২৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। এছাড়া সুরমার দুই পয়েন্টে পানি এখনও বিপৎসীমার ওপরে। এই নদীর কানাইঘাট পয়েন্টে পানি ৮৩ এবং সিলেট পয়েন্টে পানি ২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। কুশিয়ারার দুই পয়েন্টে পানিও আগের মতো আছে। এই নদীর অমলশীদ পয়েন্টে পানি ১৭৯ এবং মারকুলি পয়েন্টে পানি ৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। পুরাতন সুরমার দেরাই পয়েন্টে পানি ৪১, সোমেশ্বরী নদীর কলমাকান্দা পয়েন্টে পানি ৪১ এবং তিতাস নদীর ব্রাহ্মণবাড়িয়া পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ২৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে।
পূর্বাভাসে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে দুর্গাপুরে, ১০৫ মিলিমিটার। এছাড়া বরগুনায় ২৪ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতের দার্জিলিংয়ে ৪০ ও চেরাপুঞ্জিতে ৩৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।