বঙ্গবন্ধুর চর্চা হয় আ. লীগ ক্ষমতায় থাকার কারণে

5

চবি প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক ড. মুনতাসীর মামুন বলেছেন, “আজকে সর্বত্র বঙ্গবন্ধুর চর্চা হচ্ছে। এটা দেখে যেমন ভালো লাগে আবার আফসোসও লাগে। কারণ বর্তমানে বঙ্গবন্ধুর চর্চা হয় আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকার কারণে, ভালোবাসা থেকে নয়। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় না থাকলে চবির একটি অনুষদও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অনুষ্ঠান করতো না। ক্ষমতায় আসার আগে কখনো করেনি।”
গতকাল বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান অনুষদ মিলনায়তনে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম’ শীর্ষক সেমিনারে স্মারক বক্তব্য প্রদানকালে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. নাজনিন নাহার ইসলাম।
মুনতাসীর মামুন আরো বলেন, বাংলাদেশে অনেক রাজনৈতিক নেতা এসেছিলেন তার মধ্যে বঙ্গবন্ধু হলেন এমন একজন যিনি তার আদর্শ থেকে কখনোই বিচ্যুত হন নি। তিনি বাঙালি জাতিকে স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। বাঙালি জাতিকে সংগঠিত করার মতো কঠিন কাজ সম্পন্ন করতে পারাটাই ছিল বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে বড় সফলতা। তিনি আরো বলেন, প্রত্যেক ধর্মের মূল কথা হচ্ছে মানবকল্যাণ। আমরা যদি ধর্ম মেনে মানবকল্যাণে নিয়োজিত থাকতাম তাহলে পৃথিবীতে এত হানাহানি হতো না। কিন্তু চারিদিকে প্রতিনিয়ত হানাহানি হচ্ছে মানে আমরা ধর্ম মানছি না। ধর্মের সাথে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক থাকতে পারে না। ধর্মকে যখন রাজনীতিতে ব্যবহার করা হয় তখন ধর্ম আর ধর্ম থাকে না। ধর্মকে ব্যবহার করে জামায়াত ইসলামী এবং পাকিস্তানিরা বাংলাদেশের ৩০ লক্ষ মানুষকে হত্যা করেছিল। অগনিত মা-বোনকে ধর্ষণ করেছিল। যা ইসলাম নিজেই সমর্থন করে না। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু ধর্মভিত্তিক রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে চেয়েছিলেন।
সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার বলেন, জাতির পিতার জীবন ও কর্ম নিয়ে সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, স্মারক বক্তৃতা আয়োজন খুবই প্রাসঙ্গিক। জাতির পিতাকে নিয়ে যত বেশি সেমিনার, সিম্পোাজিয়াম ও কর্মশালা অনুষ্ঠিত হবে, তরুণ প্রজন্মের সন্তানেরা জাতির পিতা সম্পর্কে তত বেশি জানতে পারবে।
তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু মানুষকে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্ত করতে এবং দেশের মানুষকে সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধিতে রাখতে আজীবন লড়াই-সংগ্রাম করে গেছেন। স্বাধীনতার পর অল্প সময়ের মধ্যে তিনি দেশের স্বার্থ অক্ষুন্ন রেখে বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্রের সাথে সুসম্পর্ক তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিলেন। বিশ্ব নেতৃবৃন্দের কাছ থেকে পেয়েছিলেন অকুন্ঠ সমর্থন ও সহযোগিতা। তাইতো বিশ্বের প্রথম সারির নেতাদের মধ্যে তিনি ছিলেন অন্যতম বিশ্ব নেতা।
এর আগে বেলা সাড়ে এগারোটায় ধর্মীয় গ্রন্থ পাঠ ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করা হয়। অনুষ্ঠানে এ.কে.এম আব্দুল্লাহ সিদ্দীকী সাকিল ও সুস্মিতা বড়ুয়ার সঞ্চালনায় উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের সভাপতি অধ্যাপক ড. নাজনীন নশার ইসলাম।
শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন চবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক সজীব কুমার ঘোষ। অনুষ্ঠানে ‘খোকা থেকে বঙ্গবন্ধু এনিমেশন’ চলচিত্র প্রদর্শন করা হয়। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে বিশেষ বক্তৃতা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় এবং অনুষ্ঠান শেষে প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কার প্রদান করা হয়।
সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আরো বক্তব্য প্রদান করেন, সানসাইন স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সাফিয়া গাজী রহমান, চবি কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক ও ‘খোকা থেকে বঙ্গবন্ধু’ চলচিত্রের তত্ত¡াবধায়ক অধ্যাপক ড. হানিফ সিদ্দিকী।