বই অন্ধকার দূর করে চেতনার আলো ছড়ায়

4

 

বই অতীত থেকে ভবিষ্যৎ, নিকট থেকে দূরে, প্রান্ত থেকে অন্তে এমনকি যুগ থেকে যুগান্তরে জ্ঞানের আলো পৌঁছে দিতে পারে। আর আলো যেমন জাগতিক নিয়মে অন্ধকার দূর করে সব কিছু মূর্ত করে, তেমনি বই মানুষের মনের ভেতরে জ্ঞানের আলো এনে যাবতীয় অন্ধকারকে দূর করে চেতনার আলোকে উদ্ভাসিত করে। তাই দেশ কালের সীমানা অতিক্রম করে জ্ঞানের আলো মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পারে একমাত্র বই। আত্ম শিখনের কাজগুলো সমাজে আলো ছড়াবে। ১৮ সেপ্টেম্বর নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউট হল রুমে ডা. বরুণ কুমার আচার্য রচিত ‘আসুন সৃজনশীলতার চাষ করি’ গ্রন্থটি মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এসব কথা বলেন। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বাগীশিক কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক ডা. অঞ্জন দাশ, সাংবাদিক মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম রাজু, পÐিত তরুণ কুমার আচার্য কৃষ্ণ, রুবেল শীল, ঝুমুর সর্দার, শিক্ষিকা অর্চনা রানী আচার্য, শান্তিপদ আচার্য, বাদল মাস্টার, সমীর দাশ, সংগঠক নারায়ণ আচার্য, দয়াল আচার্য, লেখক লায়ন ডা. বরুণ কুমার আচার্য বলাই, শিমুল পাল, মানিক বড়ুয়া। বইটি উৎসর্গ করা হয়েছে মাইজভান্ডার শরীফ দরবারে গাউসুল আজম গাউছিয়া হক মঞ্জিলের সাজ্জাদানশীন হযরত জিয়াউল হক মাইজভান্ডারী ট্রাস্টের ট্রাস্টি আলহাজ সৈয়দ হাসান (ম.জি.আ)’র সৃষ্টিশীল কর্মের প্রতি।