বইমেলায় শেষ সময়ে বেচাকেনা বেড়েছে

12

নিজস্ব প্রতিবেদক

এবারের অমর একুশে বইমেলা শেষ হবে আগামী শনিবার। শেষ সময়ে বিকিকিনিতে ব্যস্তসময় পার করছে স্টল প্রতিনিধিরা। কারো পছন্দ ইতিহাসধর্মী বই কারো মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক, কেউ আবার বেস্ট সেলার বইয়ের খোঁজে এসেছেন। পছন্দেও বই খুঁজতে স্টলে স্টলে ঘুরছেন বইপ্রেমীরা। কারো ছবি তোলা কিংবা আড্ডা দেওয়ায় সময় নেই। সবাই বই নিয়ে ব্যস্ত। কেউ কিনছেন কেউ বিক্রি করছেন বই। মেলা বেশ জমজমাট । বাতিঘর, প্রথমা, ইউপিএল, অক্ষরবৃত্ত, বাবুই প্রকাশনীর স্টল ঘুরে গতকাল এমন চিত্র দেখা গেছে।
ইউপিএল প্রকাশনীর স্টলে কথা হয় ইসলামিয়া কলেজের ডিগ্রির শিক্ষার্থী মামুনের সাথে। কয়েকজন বন্ধ ুমিলে পরীক্ষা শেষে মেলায় আসেন। তিনি জানান, পরীক্ষার কারণে এবার মেলায় আসা হয়নি। পছন্দের দুটি বই কিনেছি। রিজওয়ানুল ইসলামের ‘উন্নয়নের অর্থনীতি’ এবং আসিফ নজরুলের ‘আমি আবু বকর’। একই কলেজের আরেক শিক্ষার্থী আজাদ বলেন, মেলার শেষদিকে বই কেনার আর্দশ সময়। এসময় প্রকাশনীরা বেশ ছাড়ে বই বিক্রি করে দেয়। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বই আমার পছন্দের শীর্ষে। এবারের মেলায় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক অনেক বই বের হয়েছে। মুহাম্মদ শামসুল হকের লেখা ‘একাত্তরের শোকগাথা’ বইটি কিনেছি। দেখছি আরো কয়েকটি বই কিনব।
ইউপিএল প্রকাশনীর বিক্রয়কর্মী আকাব জানায়, শেষদিকে বিক্রি বেড়েছে। ধারাবাহিকভাবে ২৫ থেকে ৩০ হাজারের উপরে বিক্রি হচ্ছে। মেলার প্রথমদিকে ঘুরতে আসা, বইয়ের সাথে ছবি তুলার মানুষ বেশি ছিল, এখন সেটি কমেছে। নিদিষ্ট বইয়ের তালিকা ধরে বই কিনছে। অক্ষরবৃত্ত প্রকাশনীর এক বিক্রয়কর্মী জানান, এখন আর ছবি তুলার পাঠক নেই বললে চলে এখন প্রকৃত বইপ্রেমীরা আসছে । পছন্দের বই কিনছে। ধম ফেলানোর সময় নেই। শেষ সময়ে এসে প্রতিদিন বিক্রি প্রায় লাখ ছুঁই ছুঁই। বাবুই প্রকাশনীর বিক্রয়কর্মী আবুল মোমেন বলেন, বইবিক্রিতে ধুম পড়েছে। মেলার প্রথমদিকে বেচাকেনা তিন থেকে চার হাজারের মত হতো। শেষদিকে এসে সেটি প্রায় ১৫ হাজারে উন্নতি হয়েছে।