ফটিকছড়ি উত্তর উপজেলা বাস্তবায়নে গণশুনানী

12

ফটিকছড়ি উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন নিয়ে প্রস্তাবিত ‘ফটিকছড়ি উত্তর উপজেলা’ বাস্তবায়নে ফটিকছড়ি উপজেলা প্রশাসনের ইউনিয়নভিত্তিক ধারাবাহিক গণশুনানীর অংশ হিসেবে ৩নং নারায়ণহাট ইউনিয়নে গণশুনানী ১১ জুলাই অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৩নং নারায়ণহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু জাফর মাহমুদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাব্বির রহমান সানি। অতিথি ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নাবিল হাসান।
গণশুনানীতে বক্তব্য দেন অবসরপ্রাপ্ত যুগ্মসচিব মেজবাহ উদ্দিন, শওকত আকবর, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. নূরুল করিম, বিআইডিএসের সাবেক সিনিয়র রিচার্স ফেলো ড. মোহাম্মদ ইউনুস, বিজিএমইএর সাবেক প্রথম সহ-সভাপতি নাসির উদ্দীন চৌধুরী, ট্যাক্সাস এএন্ডএম ইউনিভার্সিটির অ্যাসিসট্যান্ট প্রফেসর ড. ফটিক নাথ, নারায়ণহাট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি শওকত হোসেন সিকদার, গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক ডিজিএম মাহাবুবুল আলম সিকদার, বিজিএমইর সহ-সভাপতি রাকিবুল আলম চৌধুরী, চট্টগ্রাম ডেলটা হেলথ হাসপাতালের ব্যবস্থাপক ডা. আবুল কালামসহ স্থানীয় সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা, চিকিৎসক, আইনজীবী, ব্যবসায়ী, শিক্ষক, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন স্তরের জনসাধারণ।
বক্তারা বলেন, ফটিকছড়ি উত্তর উপজেলার জন্য নির্ধারণ করা ইউনিয়নসমূহের মধ্যে মধ্যবর্তী হচ্ছে নারায়ণহাট। নারায়ণহাটেই প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন হয়। নারায়ণহাটে স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা, হালদা নদী, ভূমি অফিস, পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাব স্টেশন, বন অফিস, রামগড় সড়ক ও বঙ্গবন্ধু অর্থনৈতিক অঞ্চল মীরসরাইয়ের সাথে সংযোগ সড়ক রয়েছে। যার কারণে এই নারায়ণহাটেই উপজেলা সদর করা দরকার। বিজ্ঞপ্তি