প্রায় ৩০ মার্কিন কৌঁসুলির অফিস ইমেইল হ্যাক, রাশিয়াকে দোষারোপ

6

 

যুক্তরাষ্ট্রে গত বছর বড় ধরনের সাইবার হামলার সময় প্রায় ৩০ জন শীর্ষ কৌঁসুলির অফিস ইমেইল অ্যাকাউন্ট হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছে বলে জানিয়েছে মার্কিন বিচার বিভাগ।
বিবিসি জানায়, ‘সোলারউইন্ডস’ সফটওয়্যারের ব্যবহারকারী কৌঁসুলিরা এই হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছেন। মার্কিন সরকারের ওপর সবচেয়ে ভয়াবহ সাইবার গুপ্তচরবৃত্তিমূলক এই হামলার জন্য রাশিয়াকেই দোষারোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বিচার বিভাগ বলেছে, ২৭ জন মার্কিন অ্যাটর্নির অন্তত একটি অফিস কম্পিউটার হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছে। এতে হ্যাকররা তথ্যদাতাদের নামসহ স্পর্শকাতর নানা তথ্য হাতিয়ে নিয়ে থাকতে পারে বলে শঙ্কা বেড়েছে। হ্যাকিংয়ের এ ঘটনা ‘সম্ভবত খুবই গুরুতর’ বলে বিবিসি-তে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ফেডারেল কৌঁসুলি গিল সফার।
তিনি বলেন, কৌঁসুলিদের ইমেইলে খুবই সংবেদনশীল ও গোপন তথ্য থাকে। হ্যাকাররা মেইল থেকে গোপন তথ্যদাতাদের খোঁজ পেয়ে গেলে তারা তাদের উদ্দেশ্য হাসিলে তা ব্যবহার করতে পারে। সরকারি এবং প্রাইভেট ১৮,০০০ কম্পিউটার নেটওয়ার্কে সাইবার অপরাধীদের হ্যাকিংয়ের ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছিল গতবছর ডিসেম্বরে। সেই সাইবার হামলায় নিউ ইয়র্কের চার অ্যাটর্নির অফিসে কর্মচারীদের ব্যবহৃত ৮০ শতাংশ ইমেইল অ্যাকাউন্ট হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছে। সাবেক ফেডারেল কৌঁসুলি রেনাটো ম্যারিওটি বলেন, ‘সরকারি কৌঁসুলিদের অফিসগুলোতে সংবেদনশীল নানা বিষয়ে তদন্ত হয়।’ তার মধ্যে আর্থিক বিষয়ে বড় ধরনের অনেক তদন্তও রয়েছে। তাই অফিস কম্পিউটার নেটওয়ার্কের কোনও তথ্য ফাঁস হওয়ার মানে হচ্ছে, তা ব্ল্যাকমেল বা চাঁদাবাজির কাজে ব্যবহৃত হতে পারে। মার্কিন বিচার বিভাগ জানায়, ‘সোলারউইন্ডস’ হ্যাকিংয়ের বিষয়টি জানাজানি হওয়ার সাত মাস আগে ২০২০ সালের মে মাসের শুরুর দিকে হ্যাকাররা সাইবার হামলা চালিয়েছিল। হ্যাকিংয়ের শিকার কৌঁসুলিদের হামলার বিষয়টি জানানো হয়েছে। তাছাড়া, হামলার ফলে যে নিরাপত্তা ঝুঁকি সৃষ্টি হয়েছে তা কমানোর চেষ্টা চলছে।