প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর চেতনার বাতিঘর মাস্টার নজির আহমদ

16

‘অমৃতের পাত্র যেন
আমার হৃদয়,
যেন সে মিটাতে পারে
এ বিশ্বের ক্ষুধা,
যেন সে ঢালিতে পারে
সান্ত¡নার সুধা
যত দুঃখ যেথা আছে
সকলের পরে অনন্ত প্রবাহে’
বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের এই বাণী যাঁর আত্মার আকাক্সক্ষা, জ্ঞান ও প্রেমের যোগে বৃহত্তের সঙ্গে যুক্ত হওয়া কেবল তাঁর পক্ষেই সম্ভব। তিনিই মানুষের নিবিড় ঘন অন্ধকারে সুশীতল জ্যোৎস্না হতে পারেন।সেই মহৎপ্রাণ ব্যক্তি হচ্ছেন মাস্টার নজির আহমদ। যাঁর ধ্যানে আর জ্ঞানে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন। সেই নিপীড়িত, অবহেলিত, দীন, অন্ধকারাচ্ছন্ন জনজীবনের মাঝখানে আলোকস্তম্ভ হয়ে দাঁড়িয়ে আলোর মশাল প্রজ্বলিত করেছেন আজীবন। তিনি উপলব্ধি করেছেন অজ্ঞান থেকে সমস্ত অনাচারের উৎপত্তি। এই যে আত্মমহিমা প্রচারকারী মানুষ এই যে হিংসুক মানুষ সে যদি জানতো ব্যক্তি হিসেবে সে কত তুচ্ছ, সেই জ্ঞান যদি তার থাকতো তাহলে সে কখনোই এসব তুচ্ছতার ভেতর থাকতো না। তাই প্রয়োজন মানুষের সঠিক জ্ঞান আন্দোলন। দরকার সবার অন্তরে এক শুভময়ের বোধ।আর তা এনে দিতে পারে সমগ্র’র ধারণা। পল্লীর শান্ত স্নিগ্ধ পরিবেশে বসে তার নিরাকরণের সুর বেজে উঠে মাস্টার নজির আহমদ এর প্রাণের বীণায়। গড়ে তোলেন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। নির্মাণ করেন সেবাপ্রদানের কাক্সিক্ষত প্রতিষ্ঠান। তৎকালীন সময়ে একজন শিক্ষক হয়ে একাজ করা যেন পঙ্গর গিরি লংঘনের সামিল। কতটুকু ত্যাগ আর সেবার মহিমায় ভাস্বর ছিলেন তা আজকের প্রজন্মের কাছে গবেষণার বিষয়।এ ধরনের মহৎপ্রাণ ব্যক্তি দুর্লভ আজকের এই ভোগবাদী সমাজে। সমাজের বিদ্যমান রূঢ় বাস্তবতার চিত্র তুলে ধরে, যেখানে প্রধান চরিত্রগুলো মানব চরিত্রের আদর্শ দিয়ে নয় বরং বেঁচে থাকার লক্ষ্যে নীতি আদর্শ বিচ্যুত বিচ্ছিন্ন মানুষ।এ যেন এক মহাজাগতিক বিশৃঙ্খলা। পরিত্রাণের লক্ষ্যে মনোনিবেশ করেন সংবাদপত্র প্রকাশে। প্রতিষ্ঠা করেন দৈনিক পূর্বদেশ।
যে পত্রিকা আজ বহুল প্রচারিত, জননন্দিত এবং গণমানুষের।এ এক বিরল ঘটনা। ইতিহাসে এ ধরনের ঘটনা আর দু’একটি আছে কিনা সন্দেহের। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, চিকিৎসালয় এর সাথে সাথে সংবাদপত্র প্রকাশ সত্যিই বিরল। মানুষকে সর্বোতভাবে দক্ষ ও যোগ্য করে তোলার মহান কারিগর মাস্টার নজির আহমদ। তিনি চেয়েছেন আলোকিত বাঁশখালী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ।জ্ঞান আর প্রেমে: ত্যাগ আর সেবায় ভাস্বর এই মহান পুরুষ। প্রাজ্ঞ শিক্ষকের প্রতি আর এক শিক্ষকের বিনম্র শ্রদ্ধা। সৃজনে মননে অনুশীলন অনুধ্যানে পূর্বদেশ ইতোমধ্যে সবার কাছে আদরনীয় হয়ে উঠেছে। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ উপস্থাপন শিল্প সাহিত্য সংস্কৃতির প্রচার প্রসার, চট্টগ্রামের কৃষ্টি সংস্কৃতি ঐতিহ্য তুলে ধরায় অনন্য দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করছে প্রিয় পূর্বদেশ। পূর্বদেশের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক এই প্রার্থনা।