প্রথম নারী হিসেবে প্রশান্ত মহাসাগরের গভীরতম খাদে রেকর্ড

30

 

ক্যাথরিন ডি. সুলিভান—একজন দুঃসাহসীক নারী। যিনি মহাকাশে কিংবা মহাসাগরে যেকোনো চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে প্রস্তুত। বয়স ৬৮ হলেও, তার মনোবল ও ইচ্ছেশক্তি এখনও প্রবল। তাইতো মহাকাশের পর এবার সমুদ্রেও নতুন রেকর্ড গড়তে পেরেছেন।
প্রথম মার্কিন নারী নভোচারী হিসেবে ১৯৮৪ সালের ১১ অক্টোবর মহাকাশে হাঁটেন ক্যাথরিন। সেসময় চ্যালেঞ্জার শাটলের বাইরে ৩ ঘণ্টা পৃথিবীর কক্ষপথে অবস্থান করেছিলেন।
দুঃসাহসিক এই নারী এবার মহাসাগরের গভীরতম অংশে যাওয়ার রেকর্ড গড়লেন। তাও বিশ্বের প্রথম নারী হিসেবে হিসেবে। রোববার একটি ছোট ডুবোযানে করে প্রশান্ত মহাসাগরের গভীরতম খাদ মারিয়ানা ট্রেঞ্চে অভিযান শেষে নিরাপদে ফিরে এসেছেন। সাবেক নৌ কর্মকর্তা ভিক্টর এ ভেসকাভো এ অভিযানে তার সঙ্গে ছিলেন।
মারিয়ানা ট্রেঞ্চের পৌছাঁনোর কৃতিত্ব এখন পর্যন্ত মাত্র ৭জন পুরুষের রয়েছে। ক্যাথরিক অষ্টম মানব হিসেবে সেখানে প্রবেশ করেন। মারিয়ানা ট্রেঞ্চে তিনি বৈজ্ঞানিক গবেষণার জন্য নমুনা সংগ্রহ করেন এবং সেগুলোর ছবি তোলেন ও ভিডিও করেন। এমনকি ডুবোযান থেকে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে থাকা নভোচারীদের সঙ্গে কথাও বলেন।
মারিয়ানা ট্রেঞ্চের অবস্থান প্রশান্ত মহাসাগরের ৬.৯ মাইল (১১ কিলোমিটার) নিচে। সমুদ্রের গভীরতম এই স্থানে পৌঁছানো এতোটা ব্যয়বহুল ও দুঃসাহসী অভিযান যে, খুব কম সংখ্যক মানুষই সেখানে যাওয়ার চেষ্টা করে। অতি গভীর হওয়ার কারণে মারিয়ানা ট্রেঞ্চে সব সময় ঘুটঘুটে অন্ধকার থাকে। প্রতি বর্গ ইঞ্চিতে পানির চাপ থাকে আট টন, যা সমুদ্রের উপরিভাগের পানির স্বাভাবিক চাপের চেয়েও এক হাজার গুণ বেশি। সূত্র : ইন্টারনেট