পাঁচ প্রতিষ্ঠানকে সোয়া ১৮ লাখ টাকা জরিমানা

3

নিজস্ব প্রতিবেদক

ইস্পাত কারখানায় এয়ার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট (এটিপি) বন্ধ রেখে অতিরিক্ত ধোঁয়া ছেড়ে বায়ু দূষণ, অপরিশোধিত তরল বর্জ্য ফেলে পরিবেশের ক্ষতিসাধন ও পরিবেশগত ছাড়পত্র ছাড়া উৎপাদন কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ায় পাঁচ প্রতিষ্ঠানকে ১৮ লাখ ২৫ হাজার ৫২০ টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর।
গতকাল বুধবার পরিবেশ অধিদফতরের চট্টগ্রাম মহানগর কার্যালয়ের পরিচালক মোহাম্মদ নুরুল্লাহ নুরী শুনানি শেষে এই জরিমানা ধার্য করেন।
ইস্পাত কারখানায় এটিপি বন্ধ রেখে অতিরিক্ত ধোঁয়া ছেড়ে বায়ু দূষণের দায়ে নগরের বায়েজিদ থানার নাসিরাবাদ এলাকার বেনাজ ইন্ডাস্ট্রিজ বাংলাদেশ লি. এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ফয়সাল ইসলামকে ৫ লাখ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পাশাপাশি একই অপরাধে নাসিরাবাদ এলাকার সিএসএস কর্পোরেশন (বিডি) লি. এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনজুর খোরশেদ জিলানীকে ৫ লাখ ৪০ হাজার ও ইসলাম স্টিলকে ৫ লাখ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
এদিকে ইটিপি বন্ধ রেখে বাইপাস লাইনের মাধ্যমে অপরিশোধিত তরল বর্জ্য ছেড়ে পরিবেশের ক্ষতিসাধন করায় নগরের নাসিরাবাদ এলাকার পপুলার ওয়াশিং কারখানার মালিক মোশারেফ হোসেনকে ৮৬ হাজার ৪শ’ টাকা ও একই অপরাধে মফিজ উদ্দিন আহমদের মালিকানাধীন হাজী ওয়াশিংকে ৬৯ হাজার ১২০ টাকা জরিমানা করে পরিবেশ অধিদপ্তর।
এর আগে, মঙ্গলবার নগরের নাসিরাবাদ এলাকায় অভিযান চালায় পরিবেশ অধিদপ্তর। অভিযানকালে বায়ু দূষণ, অপরিশোধিত তরল বর্জ্য ফেলে পরিবেশ দূষণ ও পরিবেশগত ছাড়পত্র ছাড়া প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করায় প্রতিষ্ঠানগুলোকে এনফোর্সমেন্ট নোটিশ প্রদান করা হয়।
পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম মহানগর কার্যালয়ের পরিচালক মোহাম্মদ নূরুল্লাহ নূরী জানান, এটিপি বন্ধ রেখে অতিরিক্ত ধোঁয়া ছেড়ে বায়ু দূষণ, অপরিশোধিত তরল বর্জ্য ফেলে পরিবেশের ক্ষতিসাধন ও পরিবেশগত ছাড়পত্র ছাড়া উৎপাদন কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ায় পাঁচ প্রতিষ্ঠানকে মোট ১৮ লাখ ২৫ হাজার ৫২০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।