পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি হামলায় ৭ ফিলিস্তিনি নিহত

6

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

অধিকৃত পশ্চিম তীরে শনিবার দিনশেষে এবং রোববার সকালে ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় দুই অপ্রাপ্তবয়স্ক এবং অন্তত এক বন্দুকধারীসহ ৭ জন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে চিকিৎসাকর্মী ও স্থানীয়রা। ফিলিস্তিনিদের রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে চাওয়া অঞ্চলগুলোর মধ্যে আছে পশ্চিম তীর। গাজায় আট সপ্তাহের ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধের মধ্যে পশ্চিম তীরেও একইভাবে সহিংসতা বাড়ছে। গতরাতের হামলায় ৫ জন নিহত হয়েছে জেনিন নগরীতে। ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী বলেছে, অগাস্টে পশ্চিমতীরে একটি চোরাগোপ্তা হামলার ঘটনায় জড়িত ওয়ান্টেড এক ফিলিস্তিনিসহ আরও ২০ জন সন্দেহভাজনকে আটক করতে সেখানে অভিযান চালিয়েছে তারা।
এক বিবৃতিতে সেনাবাহিনী জানায়, ‘অভিযান চলাকালে ইসরায়েলি বাহিনীর সঙ্গে সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের লড়াই হয় এবং তাদের ৫ জন ‍নিহত হয়।’ জেনিনের স্থানীয় একটি সশস্ত্র গোষ্ঠী বলেছে, যোদ্ধারা ইসরায়েলি সেনাদের সঙ্গে লড়াই করেছে। তবে হতাহতের ঘটনার ব্যাপারে তারা তাৎক্ষণিকভাবে কিছু জানায়নি। তবে স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছে, নিহত ফিলিস্তিনিদের অন্তত ১ জন জেনন ব্রিগেডের সদস্য।
সরকারি ফিলিস্তিনি বার্তা সংস্থা ডবিøউএএফএ বলেছে, ইসরায়েলি বাহিনী কয়েকদিক থেকে জেনিনে আক্রমণ চালিয়েছে। তারা গুলি চালানোর পাশাপাশি সরকারি হাসপাতাল এবং রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সদরদপ্তরগুলোও ঘেরাও করে। জেনিনে ৫ জন নিহত হওয়ার পাশাপাশি নাবলুস শহরের কাছে ইয়াতমা গ্রামে নিহত হয় ষষ্ঠতম ফিলিস্তিনি। আর সপ্তম ফিলিস্তিনি নিহত হয় পশ্চিম তীরের আল বিরেহ শহরের বাইরে ইহুদি বসতির কাছে। ফিলিস্তিন কর্মকর্তারা একথা জানিয়েছেন। তবে নিহতের এই ঘটনার বিষয়ে ইসরায়েলের কাছ থেকে তাৎক্ষণিক কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি। ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, জেনিনে গোলাগুলিতে আরও ৬ জন ফিলিস্তিনি আহতও হয়েছে।