পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করা হোক

20

 

দক্ষিণ চট্টগ্রামের শিক্ষার আলোকবর্তিকা খ্যাত ১৭৮ বছরের পুরোনো পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় এ জনপদকে মাথা উঁচিয়ে দাঁড়াবার শক্তি দিয়েছে। মধ্যযুগের পুঁথি গবেষক আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদ, জে এম সেন হলের প্রতিষ্ঠাতা যাত্রা মোহন সেন, প্রতিথযশা লেখক ড. আহমদ শরীফ মনির, বাংলার মুসলমানদের মধ্যে প্রথম গণিত ডক্টরেট আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন গণিতবিদ ড. আতাউল হাকিম, চট্টগ্রামের বরেণ্য রাজনীতিবিদ আখতারুজ্জামান বাবুসহ অসংখ্য জ্ঞানী গুণীদের স্মৃতিবিজড়িত শিক্ষালয় এ বিদ্যালয়। পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠেই ১৮৪৩ সালে পন্ডিত জওহরলাল নেহেরু জনসভায় বক্তব্য রেখেছেন, ১৯৭০ ও ৭৩ সালে বক্তব্য রেখেছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এ বিদ্যালয় দক্ষিণ চট্টগ্রামের প্রথম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, যেটি ১৮৪৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এটির পরে প্রতিষ্ঠিত হওয়া অনেক মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারিকরণ হয়েছে। পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের দানকৃত জায়গায় ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত কলেজও (পটিয়া সরকারি কলেজ) জাতীয়করণ হয় ১৯৮০ সালে। মানসম্মত শিক্ষার পরিবেশ ও শিক্ষার গুণগত মান, অবকাঠামোগত মজবুত ভিত্তি, সাংস্কৃতিক অঙ্গনসহ সকল স্তরে পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের যাবতীয় সক্ষমতা থাকারও পরও অজানা কারণে এটিকে জাতীয়করণ করা হচ্ছে না। যা শুধু পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতি অবহেলা, অবজ্ঞা নয়। বরং শিক্ষা, সংস্কৃতি ও পটিয়ার প্রতি অবহেলা, অবজ্ঞা। তাই পটিয়াবাসির দাবিকে মূল্যায়ন করে অতিসত্বর পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করা হোক।

এম. নাজমুল হক চৌধুরী
প্রাক্তণ শিক্ষার্থী-২০১৬ ব্যাচ, পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়