নেপালকে হারিয়ে সেমির আশা জিইয়ে রাখল বাংলাদেশ

8

পূর্বদেশ ক্রীড়া ডেস্ক

সেমি-ফাইনালে খেলার স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখতে জয়ের কোনো বিকল্প ছিল না। একই সঙ্গে বাড়িয়ে নিতে হতো রান রেটও। মিলিত চেষ্টায় সেটা কিছুটা করতে পেরেছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। ব্যাটে-বলে নিজেদের মেলে ধরে উড়িয়ে দিয়েছে নেপাল অনূর্ধ্ব-১৯ দলকে। বøুমফন্টেইনে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের সুপার সিক্সে গতকাল বুধবার ৫ উইকেটে জিতেছে বাংলাদেশ। নেপালের ১৬৯ রান তারা পেরিয়ে গেছে ১৪৮ বল বাকি থাকতে। নেপালের বিপক্ষে মাঠে নামার সময় বাংলাদেশের রান রেট ছিল ঋণাত্মক, -০.৬৬৭। দ্রæত জয়ের বন্দরে পৌঁছে তাদের রান রেট এখন ধনাত্মক, +০.৩৪৮। ৩ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে সুপার সিক্সে গ্রæপ ওয়ানে প্রথম দুটি স্থানে আছে ভারত (+৩.৩২৭) ও পাকিস্তান (১.০৬৪)। সেমি-ফাইনালে খেলতে হলে এই দুই দলের কোনো একটিকে টপকে যেতে হবে বাংলাদেশের। ৪ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে আছে তারা।
বাংলাদেশের জয়ের নায়ক রোহানাত দৌল্লাহ বর্ষণ ¯্রফে ১৯ রান দিয়ে নেন চার উইকেট। এমন পারফরম্যান্সের পর ম্যাচ সেরা তিনি ছাড়া আর কে! অফ স্পিনে ৩৪ রানে ৩ শিকার ধরেন শেখ পারভেজ জীবন। অবদান কম নয় জিশান আলম ও আরিফুল ইসলামের। আগের ম্যাচগুলোতে একবারও ত্রিশ পার করতে না পারা জিশান এবার খেলেন ৪৩ বলে ৫৫ রানের ইনিংস। ২ ছক্কার সঙ্গে ৬ চার মারেন এই ওপেনার। যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে রেকর্ড গড়া সেঞ্চুরি করা আরিফুলের ব্যাট হাসে এবারও। ২ ছক্কা ও ৭ চারে ৩৮ বলে ম্যাচের সর্বোচ্চ ৫৯ রান করে দলের জয় সঙ্গে নিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। এদিন দুই দলই হাতছাড়ার করেছে অনেক সুযোগ। বাংলাদেশ নিতে পারেনি কয়েকটি ক্যাচ, মিস করেছে স্টাম্পিংয়ের সুযোগ। নেপালের হাত থেকে পড়েছে অন্তত তিনটি ক্যাচ।
টস হেরে বোলিংয়ে নামা বাংলাদেশ শুরুতেই পায় সাফল্য। মারুফ মৃধা, ইকবাল হোসেন ইমন ও রোহানাতের ছোবলে ২৯ রানে তুলে নেয় ৩ উইকেট। শুরুর ধাক্কা সামাল দিয়ে দলকে কক্ষপথে ফেরানোর চেষ্টা চালান দেব খানাল ও বিশাল বিক্রাম। সাবধানী ব্যাটিংয়ের পথ বেছে নেন দুইজনই। ১১৫ বল স্থায়ী ৬২ রানের মন্থর জুটি ভাঙেন জিশান। কাভার ফিল্ডারের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ৩ চারে ৩৫ রান করা দেব। কিছুক্ষণ পর ১২ রানের মধ্যে তিন উইকেট তুলে নিয়ে নেপালের ব্যাটিংয়ে ধস নামান পারভেজ। ৬ চারে ৪৮ রান করতে ১০০ বল খেলা বিশালের স্টাম্প ভেঙে দেন রোহানাত। এরপর আর বেশিদূর এগোয়নি নেপালের ইনিংস। রান তাড়ায় শুরু থেকেই আক্রমণের পথে হাঁটেন জিশান। অপরপ্রান্তে আশিকুর রহমান শিবলি ছিলেন সাবধানী। তাদের জুটিতে প্রথম ১০ ওভারে ৬১ রান তোলে বাংলাদেশ।
ধীরলয়ে এগোনো আশিকুরই বিদায় নেন আগে। সুবাশ ভান্ডারির বলে ছক্কার চেষ্টায় লং-অনে ধরা পড়েন বাংলাদেশ ওপেনার। আগ্রাসী শুরুর আভাস দেওয়া চৌধুরী মোহাম্মদ রিজওয়ানও তেড়েফুঁড়ে মারতে গিয়ে হন স্টাম্পড। ৩৯ বলে ফিফটি করার পর টিকতে পারেননি জিশানও। এরপর আহারার আমিন ও মোহাম্মদ শিহাব জেমসকে ফিরিয়ে পাঁচ উইকেট পূর্ণ করেন সুবাশ। যদিও এতে তেমন একটা লাভ হয়নি নেপালের। সুযোগ পেলেই নেপালের বোলারদের ওপর ছড়ি ঘোরানো আরিফুল ৩৪ বলে পা রাখেন পঞ্চাশে। ম্যাচ জেতানো রানটিও আসে তার ব্যাট থেকে। সুপার সিক্সে আগামী শনিবার পাকিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের শেষ ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। সংক্ষিপ্ত স্কোর: নেপাল অনূর্ধ্ব-১৯ দল: ৪৯.৫ ওভারে ১৬৯ (আর্জুন ১৪, বিপিন ২, আকাশ ত্রিপাঠী ৩, দেব ৩৫, বিশাল ৪৮, গুলশান ৩, দিপাক ৩, দিপেশ ৩, সুবাশ ১৮*, আকাশ চাঁদ ০, দুর্গেশ ৯; ইকবাল ৯-০-২৮-১, মারুফ ৬-০-৩৪-১, রোহানাত ৮.৫-২-১৯-৪, মাহফুজুর ১০-০-২২-০, পারভেজ ১০-২-৩৪-৩, আরিফুল ১-০-৫-০, জিশান ৫-০-১৬-১) বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল: ২৫.২ ওভারে ১৭০/৫ (আশিকুর ১৬, জিশান ৫৫, রিজওয়ান ১৫, আরিফুল ৫৯*, আহরার ১২, শিহাব ০, পারভেজ ৫*; গুলশান ৪-০-২৯-০, আকাশ চাঁদ ৩-০-৪২-০, দুর্গেশ ৩-১-১১-০, দিপেশ ৬-০-২৯-০, সুবাশ ৮-০-৪৪-৫, দেব ১-০-১১-০, আর্জুন ০.২-০-২-০) ফল: বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল ৫ উইকেটে জয়ী। ম্যান অব দা ম্যাচ: রোহানাত দৌল্লাহ বর্ষণ।