‘নির্বাচনে নয়’ গ্রেপ্তার এড়াতে ব্যস্ত বিএনপি

17

এম এ হোসাইন

বিএনপি নির্বাচনে আসবে কি-না এমন প্রশ্ন এখন প্রায় সবার মুখে মুখে। পক্ষে-বিপক্ষে নানা যুক্তিও তুলে ধরছেন অনেকে। এরই মধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) তফসিল পরিবর্তনের ইঙ্গিত দিয়েছেন। সিইসির তফসিল পরিবর্তনে ইঙ্গিতে আওয়ামী লীগের আপত্তি নেই বলে জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তাঁর এমন বক্তব্যের পর বিএনপির নির্বাচনে আসা-না আসা নিয়ে গুঞ্জন আরো জোরালো হয়েছে। তবে বিএনপির নেতাদের মতে, নির্বাচনের চেয়ে মামলা মোকাবিলা এবং গ্রেপ্তার এড়ানোর দিকে বেশি মনোযোগ দিচ্ছেন তারা।
এদিকে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় শেষ হচ্ছে আগামীকাল। তবে শেষ মুহূর্তেও আলোচনায় বিএনপি নির্বাচনে আসবে কি না সেই প্রসঙ্গ। বিএনপি নির্বাচনে না আসলেও সমমনা কেনো কোনো দল নির্বাচনে যাবে এমনটা মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। আবার পর্দার আড়ালে বিএনপি নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে এমনটাও গুঞ্জন রয়েছে। যদিও বিএনপির নীতিনির্ধারকদের মতে, বর্তমান পরিস্থিতিতে তাদের নির্বাচনে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনাই নেই। আন্দোলন-জোরদার করা, গ্রেপ্তার এড়ানো এবং নির্বাচন বর্জনে প্রয়োজনীয় জনসমর্থনের দিকে নজর দেয়া হচ্ছে। তাছাড়া বিএনপির সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ার সঙ্গে যারা গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত, তাদের তিনজন এখন কারাগারে। জ্যেষ্ঠ নেতাসহ মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মীরা অনেকটাই আত্মগোপনে। প্রতিদিন দলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার এবং বাসায় পুলিশি তল্লাশি চলছে বলে অভিযোগ। এ অবস্থায় গ্রেপ্তার এড়িয়ে মাঠে থাকার দিকে বেশি জোর দিচ্ছে দলটি।বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এক ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে বলেছেন, গত ১৫ নভেম্বর নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর থেকে এ পর্যন্ত ৪ হাজার ৯৯৫ জনের বেশি নেতাকর্মী গ্রেপ্তার হয়েছে। আর ২৮ অক্টোবর বিএনপির মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে তার চার-পাঁচ দিন আগ থেকে অদ্যাবধি ১৭ হাজারের বেশি নেতাকর্মী গ্রেপ্তার হয়েছে।
চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহব্বায়ক আবু সুফিয়ান বলেন, বিএনপির নির্বাচনে অংশ নেয়ার কোনো প্রশ্নই উঠে না। ন্যাড়া বেল তলায় বারবার যায় না। কেমন নির্বাচন হবে সেটা তো সবাই জানে। এমন নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিবে না। আমরা আমাদের আন্দোলন-সংগ্রাম চালিযে যাবো।
তিনি বলেন, আমাদের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হওয়া উচিত ছিল আওয়ামী লীগ। কিন্তু এখন সেটা হয়ে গেছে রাষ্ট্রযন্ত্র। এ ক্ষেত্রে নানা বাধা-বিপত্তি আছে। বিভিন্ন হামলা, পুলিশি অভিযান এসব আছে। প্রহসন চলছে; নানান প্রতিকূলতা আছে, থাকবে। তবে শেষে কিন্তু জনগণেরই জয় হবে।