নিরাপদে সেনা প্রত্যাহার আফগানিস্তানে যুদ্ধবিমান পাঠাল যুক্তরাষ্ট্র

3

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন এবং কোয়ালিশন বাহিনীর সেনা নিরাপদে প্রত্যাহার করতে সেখানে বাড়তি সামরিক সুরক্ষা ব্যবস্থা নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। পাঠানো হয়েছে বেশ কয়েকটি বোমারু ও জঙ্গিবিমান। সেনাদের পাশাপাশি বেসামরিক ঠিকাদারদের সুরক্ষায় ভারি বোমারু বিমানও পাঠানো হবে বলে জানিয়েছে বিবিসি। আফগানিস্তানে প্রায় ২০ বছরের যুদ্ধের সমাপ্তি টেনে সেখান থেকে বাদবাকি সব সেনা সরিয়ে নিতে শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র এবং নেটো জোট।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সেনা প্রত্যাহারের সময়সীমা ১১ সেপ্টেম্বর নির্ধারণ করেছেন। কিন্ত সেনা প্রত্যাহার প্রক্রিয়া চলার মধ্যেই আফগানিস্তানে সহিংসতা বেড়েছে।
প্রতিশোধ হামলা হওয়ার আশঙ্কায় আফগান নিরাপত্তা বাহিনী উচ্চ সতর্কবস্থায় আছে। তালেবান গোষ্ঠী হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, তারা আন্তর্জাতিক বাহিনীর ওপর হামলা বন্ধ রাখতে এখন আর চুক্তিবদ্ধ নেই। গত বছর তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসনের সঙ্গে তালেবানের চুক্তি অনুযায়ী, এ বছরের ১ মে মাসের মধ্যে মার্কিন বাহিনীর আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল। ওই সময় পর্যন্ত আন্তর্জাতিক বাহিনীর ওপর হামলা বন্ধ রেখেছিল তালেবান। এখন আবার আফগানিস্তানে দফায় দফায় তালেবান হামলা হচ্ছে।
এ পরিস্থিতিতে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর জয়েন্ট চিফস অব স্টাফ চেয়ারম্যান জেনারেল মার্ক মিলি জানিয়েছেন, আফগানিস্তান ছেড়ে যেতে থাকা আড়াই হাজার সেনা সদস্য এবং ১৬ হাজার বেসামরিক ঠিকাদারকে রক্ষায় সেখানে ছয়টি দীর্ঘ পাল্লার বি-৫২ বোমারু বিমান এবং ১২টি এফ-১৮ যুদ্ধবিমান মোতায়েন করা হয়েছে। মিলি জানান, তালেবান জঙ্গিরা আফগান সরকারকে হামলার নিশানা করে প্রতিদিন ৮০ থেকে ১২০টি হামলা চালাচ্ছে। অথচ গত ১ মে থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু হওয়ার পর মার্কিন এবং কোয়ালিশন বাহিনীর ওপর কোনও হামলা হয়নি। সেনা প্রত্যাহার পরিকল্পনা মোতাবেকই চলছে বলে জানিয়েছেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী অস্টিন।